রবিবার, ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   আইন - অপরাধ -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
রাজধানীতে ‘ছোঁ মারা’ চক্রের ১৬ সদস্য গ্রেপ্তার

স্টাফ রিপোর্টার:

রাজধানীতে প্রতিদিন অন্তত তিনশটি মোবাইল ফোন ছিনতাই করে ‘ছোঁ মারা’ চক্র। বাস-প্রাইভেটকার-সিএনজি অটোরিকশার যাত্রী এমনকি পথচারীরাও তাদের টার্গেটে থাকতো। এই চক্রের ১৬ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। এদিকে, ঈদকে সামনে রেখে একটি চক্র দুইশ কোটি জাল টাকা তৈরির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। যাদের ৪ সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।  

শনিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (ডিবি) হারুন অর রশীদ সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান।
 
ডিবি প্রধান জানান, বাস থেকে ছোঁ মেরে মোবাইল ছিনতাই করতো ছোঁ মারা চক্রের সদস্যরা। বাস, সিএনজি এমনকি প্রাইভেট কারে কাউকে অসচেতন দেখালেই ছোঁ মেরে মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিতো তারা।  

রাজধানীর বিভিন্ন স্থান থেকে চক্রের ১৬ সদস্যকে গ্রেপ্তারের পর গোয়েন্দা পুলিশ বলছে, তারা ৪টি ভাগে ভাগ হয়ে এ কাজ করতো। ছিনতাই করা মোবাইলের ডিভাইস আলাদা করে বিক্রি করতো চক্রটি, আর কিছু মোবাইল দেশের বাইরেও পাচার করতো।  

এদিকে, ঈদকে সামনে রেখে, সক্রিয় হয়ে উঠেছিল জাল টাকা তৈরি চক্রের বেশ কিছু সদস্য। চক্রের ৪ জনকে গ্রেপ্তারের পর গোয়েন্দা পুলিশ বলছে, ঈদকে সামনে রেখে দুইশ কোটি টাকার জাল নোট বাজারে ছাড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিল তারা।

এই চক্রের সাথে কয়েকটি প্রেসের মালিক জড়িত জানিয়ে ডিবি প্রধান হারুন বলেন, কয়েকটি ভাগে ভাগ হয়ে কাজ করতো চক্রটি। এক গ্রুপ জাল টাকা তৈরি করতো, আরেক গ্রুপ তা বাজারে ছড়িয়ে দিত। ছে নেয়।

রাজধানীতে ‘ছোঁ মারা’ চক্রের ১৬ সদস্য গ্রেপ্তার
                                  

স্টাফ রিপোর্টার:

রাজধানীতে প্রতিদিন অন্তত তিনশটি মোবাইল ফোন ছিনতাই করে ‘ছোঁ মারা’ চক্র। বাস-প্রাইভেটকার-সিএনজি অটোরিকশার যাত্রী এমনকি পথচারীরাও তাদের টার্গেটে থাকতো। এই চক্রের ১৬ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। এদিকে, ঈদকে সামনে রেখে একটি চক্র দুইশ কোটি জাল টাকা তৈরির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। যাদের ৪ সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।  

শনিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (ডিবি) হারুন অর রশীদ সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান।
 
ডিবি প্রধান জানান, বাস থেকে ছোঁ মেরে মোবাইল ছিনতাই করতো ছোঁ মারা চক্রের সদস্যরা। বাস, সিএনজি এমনকি প্রাইভেট কারে কাউকে অসচেতন দেখালেই ছোঁ মেরে মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিতো তারা।  

রাজধানীর বিভিন্ন স্থান থেকে চক্রের ১৬ সদস্যকে গ্রেপ্তারের পর গোয়েন্দা পুলিশ বলছে, তারা ৪টি ভাগে ভাগ হয়ে এ কাজ করতো। ছিনতাই করা মোবাইলের ডিভাইস আলাদা করে বিক্রি করতো চক্রটি, আর কিছু মোবাইল দেশের বাইরেও পাচার করতো।  

এদিকে, ঈদকে সামনে রেখে, সক্রিয় হয়ে উঠেছিল জাল টাকা তৈরি চক্রের বেশ কিছু সদস্য। চক্রের ৪ জনকে গ্রেপ্তারের পর গোয়েন্দা পুলিশ বলছে, ঈদকে সামনে রেখে দুইশ কোটি টাকার জাল নোট বাজারে ছাড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিল তারা।

এই চক্রের সাথে কয়েকটি প্রেসের মালিক জড়িত জানিয়ে ডিবি প্রধান হারুন বলেন, কয়েকটি ভাগে ভাগ হয়ে কাজ করতো চক্রটি। এক গ্রুপ জাল টাকা তৈরি করতো, আরেক গ্রুপ তা বাজারে ছড়িয়ে দিত। ছে নেয়।

আগারগাঁও পাসপোর্ট অফিসে দালালচক্রের ২৬ সদস্যকে দণ্ড
                                  

স্টাফ রিপোর্টার:

রাজধানীর আগারগাঁও পাসপোর্ট অফিস এলাকায় অভিযান চালিয়ে দালাল চক্রের ২৬ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড প্রদান করেছেন র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব-২) ভ্রাম্যমাণ আদালত।

বৃহস্পতিবার (২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে র‍্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জনাব মো. ইকবাল হাসানের নেতৃত্বে এ ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়।

এ সময় পাসপোর্ট দালাল চক্রের ২৬ জনকে গ্রেফতার করে আসামিদের স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

র‍্যাব-২ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক মো. ফজলুল হক জানান, আগারগাঁও পাসপোর্ট অফিসের সামনে এবং পার্শ্ববর্তী ব্যাংকে টাকা জমা দেওয়ার লাইনে দাঁড়ানো পাসপোর্ট প্রার্থীদের টার্গেট করে তৎপরতা চালান দালাল চক্রের সদস্যরা।

তারা ফরম পূরণ-সত্যায়ন, ব্যাংকে ফি জমা, কাগজপত্র ঘাটতি, ভুল বা ভুয়া কাগজপত্র, এমনকি পাঁচ থেকে ছয় হাজার টাকায় ভেরিফিকেশন ছাড়া অতি দ্রুত পাসপোর্ট তৈরির সম্পূর্ণ দায়িত্ব নেওয়ার জন্য প্রলুব্ধ করে টাকা হাতিয়ে নেন।

পাসপোর্ট প্রার্থীরা তাদের প্রতারণায় রাজি না হওয়া পর্যন্ত নানাভাবে বিরক্ত করতেই থাকেন। এসব ব্যাপারে সতর্কীকরণ বিজ্ঞপ্তি প্রচারিত হওয়ার পরও চক্রটি গণউপদ্রব চালাতে থাকেন।

মানুষের হয়রানি বন্ধ না হওয়ায় গোয়েন্দা নজরধারীর ধারাবাহিকতায় আগারগাঁও পাসপোর্ট অফিস এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২৬ জনকে আটক করে বিভিন্ন মেয়াদে দণ্ড প্রদান করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। ভবিষ্যতেও র‍্যাব-২ এ ধরনের অভিযান অব্যাহত রাখবে বলেও জানান তিনি।

একদিন বাবা আরেকদিন মায়ের কাছে থাকবে জাপানি ছোট মেয়ে
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক :

পারিবারিক আপিল আদালতে আপিল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত জাপানি দুই শিশুর মধ্যে ছোট শিশু লায়লা লিনা বাবার কাছে একদিন ও মায়ের কাছে একদিন করে থাকবে। অপরদিকে পারিবারিক আদালতের দেওয়া রায় মোতাবেক বড় মেয়ে মায়ের হেফাজতেই থাকবে।

গত ২৯ জানুয়ারি রায় ঘোষণার পর ছোট মেয়েকে নিজ জিম্মায় পেতে মা নাকানো এরিকোর করা গুলশান থানার সাধারণ ডায়েরির (জিডি) বিষয়ে শুনানি শেষে আদালত এ আদেশ দেন। বৃহস্পতিবার (২ ফেব্রুয়ারি) ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. মামুনুর রশিদের আদালতে এ শুনানি অনুষ্ঠিত হয়।

এ দিন মা নাকানো এরিকোর পক্ষে আইনজীবী শিশির মনির শুনানি করেন। বাবা ইমরান শরিফের পক্ষে তার আইনজীবী নাসিমা আক্তার লাভলী শুনানি করেন। দুই পক্ষের আইনজীবীদের বক্তব্য উপস্থাপন শেষে বিচারক তার খাস কামরায় দুই শিশুর বক্তব্য শুনে এ আদেশ দেন।

রোববার (২৯ জানুয়ারি) ঢাকার দ্বিতীয় অতিরিক্ত সহকারী জজ ও পারিবারিক আদালতের বিচারক দুরদানা রহমান বাবা ইমরান শরীফের করা মামলা খারিজ করে জাপানি বংশোদ্ভুত ওই দুই শিশু মায়ের জিম্মায় থাকবে বলে রায় দেন। এদিকে রায়ের বিরুদ্ধে বুধবার (১ ফেব্রুয়ারি) পারিবারিক আপিল আদালতে আপিল করেন বাদী ইমরান শরিফ। আপিল শুনানির জন্য আদালত আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করেছেন।

একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধী মজিদ গ্রেপ্তার
                                  

স্টাফ রিপোর্টার:

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল কর্তৃক মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি আব্দুল মজিদকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব ৩। বুধবার রাতে তাকে মাদারীপুর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।  

বৃহস্পতিবার (২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে কাওরানবাজারে সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাব- ৩ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল আরিফ মহিউদ্দিন জানান, ১৯৭১ সালের ২১ আগস্ট রাজাকার বাহিনী নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার বাড়হা গ্রামের আব্দুল খালেক সহ ৯ জনকে গুলি করে হত্যা করে মজিদ ও তার সহযোগীরা। হত্যার পর মৃতদেহ কংস নদীতে ভাসিয়ে দেয়।

২০১৪ সালে তাদের বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে মামলা করেন শহীদ আব্দুল খালেকের ছোট ভাই বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কাদের। তখন থেকেই পলাতক ছিলেন মজিদ। একাত্তরে মজিদ ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে হত্যা-গণহত্যা, নির্যাতন, লুট, অগ্নিসংযোগ ও ধর্ষণসহ মানবতাবিরোধী সাতটি অভিযোগ ছিল।

মজিদ মুক্তিযুদ্ধের সময় নেজামে ইসলামীর নেতা হিসেবে রাজাকার বাহিনীতে যোগ দেন। পরবর্তী সময়ে তিনি জামায়াতের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত হন। গ্রেপ্তার মজিদ নিজ এলাকা থেকে পালিয়ে ফকিরাপুল চলে যায়। সেখান থেকে পরে মাদারীপুরের একটি কামিল মাদরাসায় শিক্ষকতা শুরু করেন। পরিচয় গোপন রাখতে জনসমাগম এড়িয়ে চলতো।

পনেরো বছরে ১০০০ মোটরসাইকেল চুরি করেছে খালেক
                                  

স্টাফ রিপোর্টার:

গত ১৫ বছরে ঢাকা থেকে এক হাজার মোটরসাইকেল চুরি করেছেন খালেক হাওলাদার ওরফে সাগর আহম্মেদ। সম্প্রতি পুলিশের হাতে গ্রেপ্তারের পর বেরিয়ে আসে চাঞ্চল্যকর এ চোর চক্রের কাহিনী।

মোটরসাইকেল চোর চক্রের এ সদস্যকে গ্রেপ্তারের পর বুধবার (১ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে মিন্টো রোডে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের(ডিএমপি) অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ডিবি) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ।

গ্রেপ্তারের পর খালেকের কাছ থেকে ১২টি চোরাই মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়।

গোয়েন্দা পুলিশ জানায়, গত মাসে তুরাগ এলাকা থেকে একটি মোটরসাইকেল চুরির ঘটনায় তুরাগ থানায় মামলা দায়ের হয়। এরপর তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় গোয়েন্দা পুলিশ চোরের অবস্থান শনাক্ত করে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে গ্রেপ্তার করে।

ডিবি প্রধান মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেন, কোনভাবেই মোটরসাইকেল চুরি রোধ করাই যাচ্ছে না। রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে প্রতিদিন মোটরসাইকেল চুরি হচ্ছে। বাসার গ্যারেজ, রাস্তা কিংবা অফিস থেকেও তালা ভেঙে অনেকের মোটরসাইকেল চুরি হচ্ছে।

তিনি বলেন, বৈধ কাগজপত্র ছাড়া মোটরসাইকেল কেনা অবৈধ। চোরাই মোটরসাইকেল যার কাছে পাওয়া যাবে তাকেই গ্রেপ্তার করা হবে। যার কাছে চোরাই মোটরসাইকেল পাওয়া যাবে তাকেই চোর হিসেবে সাব্যস্ত করা হবে।

তিনি আরও জানান, গ্রেপ্তার খালেকের সঙ্গে আরও ৭-৮ জন সহযোগী রয়েছে। যাদের কেউ কেউ মোটরসাইকেল চুরির মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে জেলহাজতে রয়েছে। জেল থেকে বেরিয়ে তারা আবার একইভাবে চুরির কাজ করেন।

চুরির পদ্ধতি সম্পর্কে মোহাম্মদ হারুন বলেন, প্রথমে কোনো একটি বাসার মোটরসাইকেল টার্গেট করেন এ চোর চক্রের সদস্যরা। পরে বাসার গ্যারেজের তালা ভাঙার পর মোটরসাইকেলের তালা খুলে নিয়ে যায়।

গ্রেপ্তার খালেক সম্পর্কে এ ডিবি কর্মকর্তা বলেন, এক সময় চাঁদপুরে মোটরসাইকেলের মেকানিকের কাজ করতেন খালেক। এসময় চোর চক্রের সঙ্গে তার পরিচয় হয় এবং মোটরসাইকেল চুরি চক্রে জড়িয়ে পড়েন।

হারুন বলেন, ঢাকা থেকে মোটরসাইকেল চুরির পর ফেনী, কুমিল্লা, নোয়াখালী, মুন্সিগঞ্জ, নবাবগঞ্জ ও হাওর অঞ্চলসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় কম দামে বিক্রি হয়। এসব চোরাই মোটরসাইকেল কাগজপত্র না থাকলেও কিনে নিচ্ছে। আমরা বারবারই বলছি, কাগজ-পত্র নেই এমন মোটরসাইকেল কেনা অবৈধ। চোরাই মোটরসাইকেল যার কাছে পাবো তাকেই চোর হিসেবে সাব্যস্ত করবো। কারণ চোরাই মাল কেনাও একটা অপরাধ। কেউ যদি কাগজপত্রবিহীন চোরাই মোটরসাইকেল কেনেন তাদের সকলের বিরুদ্ধে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নেবো।

নকল চাবি বানানো ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ডিবির অভিযান চলছে জানিয়ে তিনি বলেন, যে দোকানি নকল চাবি বানান তিনিও চোর চক্রের সঙ্গে জড়িত। কারণ কেউ একজন নকল চাবি বানাতে এলে ওই দোকানি একই চাবি বানিয়ে তার কাছেও একটি রেখে দেন। তারা এই কাজটি নিয়মিত করছে।

অনেক মানুষ ব্যাংক থেকে লোন বা দেনা করে মোটরসাইকেল কেনেন উল্লেখ করে হারুন অর রশীদ বলেন, কষ্টের টাকায় কেনা মোটরসাইকেল যার চুরি হয় সেই বোঝেন। তাই আমি অনুরোধ করবো, গাড়ি কিংবা মোটরসাইকেল চুরি হলেই তাৎক্ষনিকভাবে নিকটস্থ থানায় জিডি করুন। এরপর জিডির কপিটি নিয়ে আমাদের ডিবির টিমের সঙ্গে যোগাযোগ করলে মোটরসাইকেল উদ্ধারে চেষ্টা করতে পারবো।

ভিকারুননিসায় ৪১ সহোদরা-যমজকে ভর্তির নির্দেশ
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক:

ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রথম শ্রেণিতে ৪১ সহোদরা/যমজকে ভর্তি নেওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন হাইকোর্ট। ওই ৪১ শিক্ষার্থীর পক্ষে অভিভাবকের করা রিটের শুনানি নিয়ে মঙ্গলবার বিচারপতি কেএম কামরুল কাদের এবং বিচারপতি মোহাম্মদ আলীর হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ এ আদেশ দেন।

আদালতে রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এবিএম আলতাফ হোসেন ও আইনজীবী শফিকুর রহমান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এবিএম আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার।

পরে আইনজীবী এবিএম আলতাফ হোসেন জানান, বেসরকারি স্কুল, স্কুল অ্যান্ড কলেজ (মাধ্যমিক, নিম্ন মাধ্যমিক ও সংযুক্ত প্রাথমিক স্তর) শিক্ষার্থী ভর্তির নীতিমালা, ২০২২ অনুসারে কোনো প্রতিষ্ঠানে আবেদনকারী শিক্ষার্থীর সহোদর/সহোদরা বা যমজ ভাই/বোন যদি আগে থেকে অধ্যয়নরত থাকে, সেসব সহোদর/যমজকে সংশ্লিষ্ট ভর্তি কমিটি আবেদন যাচাই-বাছাই করে ভর্তির প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।

এই বিধানমতে ৪১ জন সহোদরা/যমজ প্রথম শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন করে। কিন্তু ১৬ জানুয়ারি শিক্ষা মন্ত্রণালয় একটি পরিপত্র দেয়। যেখানে বলা হয়, শুধু ২০২৩ শিক্ষাবর্ষের জন্য কোনো প্রতিষ্ঠানে অ্যান্ট্রি শ্রেণিসহ অন্যান্য শ্রেণিতে মোট আসনের অতিরিক্ত ৫ শতাংশ শিক্ষার্থী সহোদর/যমজ ভর্তির জন্য আবেদনকারীদের মধ্যে থেকে ভর্তি করাতে পারবে।

এ বিধানের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিটটি করা হয়। কারণ তারা যখন আবেদন করে তখন ৫ শতাংশের বিধান ছিল না। এ কারণে আদালত এই ৪১ জনের ক্ষেত্রে ওই বিধান স্থগিত করে রুল জারি করেছেন। পাশাপাশি তাদের ভর্তি করাতে নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানান আইনজীবী এবিএম আলতাফ হোসেন।

নিবন্ধন বাতিল : আপিল প্রস্তুতে জামায়াতকে ২ মাস সময়
                                  

আদালত প্রতিবেদক : রাজনৈতিক দল হিসেবে নিবন্ধন বাতিলের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আপিল চূড়ান্ত শুনানির জন্য প্রস্তুত করতে দুই মাস সময় দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আপিল বিভাগে জামায়াতের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট অন রেকর্ড জয়নুল আবেদীন তুহিন। রিটকারীর পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার তানিয়া আমীর।

পরে ব্যারিস্টার তানিয়া আমীর বলেন, মামলাটি শুনানি করার জন্য আমরা অনেকবার উদ্যোগ নিয়েছি। আদালত তাদের অনেকবার সময় দিয়েছেন। ওনারা গড়িমসি করে রেডি করছে না। আজকে ফাইনাল আদেশ দিল। যদি আট সপ্তাহের মধ্যে ফাইল (আপিলের সার সংক্ষেপ) শুনানির জন্য রেডি না করে তাহলে ডিফল্ট (খারিজ) হয়ে যাবে।

এদিকে জামায়াতে ইসলামীর একজন আইনজীবী মতিউর রহমান আকন্দ বলেন, আজকে মামলাটি আপিল বিভাগের কার্যতালিকায় ছিল। আদালত আগামী দুই মাসের জন্য সময় দিয়েছেন। এ দুই মাসের মধ্যে কনসাইজ স্টেটমেন্ট (আপিলের সার সংক্ষেপ) জমা দেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। আর কোনো সময় দেবেন নাও বলে উল্লেখ করেছেন আদালত।

তিনি বলেন, আদালতের আদেশ অনুসারে মামলার শুনানিতে জামায়াতে ইসলামী অংশ নেবে। আশা করি সব শর্ত পূরণ করেই জামায়াত নিবন্ধন ফিরে পাবে। আর দুই মাসের মধ্যে আপিল প্রস্তুত করতে পারব। আমাদের প্রধান আইনজীবী সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এজে মোহাম্মদ আলী। এছাড়া ব্যারিস্টার ইমরান সিদ্দিক ও এহসান সিদ্দিক আইনজীবী হিসেবে নিযুক্ত আছেন। তারা এ মামলাটি পরিচালনা করবেন।

২০০৮ সালের ৪ নভেম্বর জামায়াতকে সাময়িক নিবন্ধন দেওয়া হয়।

পরের বছর বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের তৎকালীন সেক্রেটারি জেনারেল সৈয়দ রেজাউল হক চাঁদপুরী, জাকের পার্টির তৎকালীন মহাসচিব মুন্সি আবদুল লতিফ, সম্মিলিত ইসলামী জোটের প্রেসিডেন্ট মওলানা জিয়াউল হাসানসহ ২৫ জন জামায়াতের নিবন্ধনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ রিট করেন।

রিটে জামায়াতের তত্কালীন আমির মতিউর রহমান নিজামী, সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ, নির্বাচন কমিশনসহ চারজনকে বিবাদী করা হয়। তারা জামায়াতের নিবন্ধন বাতিলের আরজি জানান।

এ রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে বিচারপতি এবিএম খায়রুল হক (পরে প্রধান বিচারপতি) ও বিচারপতি মো. আবদুল হাইয়ের হাইকোর্ট বেঞ্চ ২০০৯ সালের ২৭ জানুয়ারি রুল জারি করেন। ছয় সপ্তাহের মধ্যে বিবাদীদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়। রুলে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন কেন আইনগত কর্তৃত্ব বহির্ভূত এবং গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের ৯০বি (১) (বি) (২) ও ৯০ (সি) অনুচ্ছেদের লঙ্ঘন ঘোষণা করা হবে না- তা জানতে চাওয়া হয়।

জামায়াতের নিবন্ধন নিয়ে রুল জারির পর ওই বছরের ডিসেম্বরে একবার, ২০১০ সালের জুলাই ও নভেম্বরে দুবার এবং ২০১২ সালের অক্টোবর ও নভেম্বরে দুবার তাদের গঠনতন্ত্র সংশোধন করে নির্বাচন কমিশনে জমা দেয়। এসব সংশোধনীতে দলের নাম ‘জামায়াতে ইসলামী, বাংলাদেশ’ পরিবর্তন করে ‘বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী’ করা হয়।

পরে ২০১৩ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি আবেদনকারীরা এ রুল শুনানির জন্য বেঞ্চ গঠনের জন্য প্রধান বিচারপতির কাছে আবেদন করেন। এ আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ওই বছরের ৫ মার্চ আবেদনটি বিচারপতি এম মোয়াজ্জাম হোসেনের নেতৃত্বাধীন দ্বৈত বেঞ্চে শুনানির জন্য পাঠানো হয়। ১০ মার্চ সাংবিধানিক ও আইনের প্রশ্ন জড়িত থাকায় বৃহত্তর বেঞ্চে শুনানির প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করে আবেদনটি প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠানোর আদেশ দেন দ্বৈত বেঞ্চ। ওইদিন প্রধান বিচারপতি তিন বিচারপতির সমন্বয়ে বৃহত্তর বেঞ্চ গঠন করে দেন।

২০১৩ সালের ১২ জুন ওই রুলের শুনানি শেষ হলে যে কোনো দিন রায় দেবেন বলে জানিয়ে অপেক্ষমান (সিএভি) রাখেন হাইকোর্টের বৃহত্তর (লার্জার) বেঞ্চ।

পরে জামায়াতকে দেওয়া নির্বাচন কমিশনের (ইসি) নিবন্ধন ২০১৩ সালের ১ আগস্ট সংখ্যাগরিষ্ঠ মতের ভিত্তিতে অবৈধ বলে রায় দেন বিচারপতি এম মোয়াজ্জাম হোসেন, বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি কাজী রেজা-উল-হকের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের বৃহত্তর (লার্জার) বেঞ্চ।

সে সময় সংক্ষিপ্ত রায়ে আদালত বলেন, এ নিবন্ধন দেওয়া আইনগত কর্তৃত্ব বহির্ভূত। একইসঙ্গে আদালত জামায়াতকে আপিল করারও অনুমোদন দিয়ে দেন।

তবে এ রায়ের স্থগিতাদেশ চেয়ে জামায়াতের করা আবেদন একই বছরের ৫ আগস্ট খারিজ করে দেন আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী।

পরে একই বছরের ২ নভেম্বর পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হলে জামায়াতে ইসলামী আপিল করে। ওই আপিল শুনানিতে উদ্যোগ নেন রিটকারী পক্ষ। সে অনুসারে আপিলটি ৩১ জানুয়ারি মঙ্গলবার কার্যতালিকায় ওঠে।

অনলাইন জুয়া প্ল্যাটফর্ম পরিচালনার দায়ে দুইজন গ্রেফতার
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:

অনলাইনে জুয়া প্ল্যাটফর্ম পরিচালনা করে লাখ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দুইজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অ্যান্টি টেরোরিজম ইউনিট (এটিইউ)।

শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) রাতে বগুড়ার সদর থানাধীন কলোনী বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতাররা হলেন রানা মিয়া (২৩) ও রেজা আহমেদ (২২)।

এটিইউর সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি-মিডিয়া অ্যান্ড অ্যাওয়ারনেস) ওয়াহিদা পারভীন জানান, গ্রেফতাররা ফেসবুক আইডি ও ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে অনলাইনে জুয়ার ওয়েবসাইটে জুয়া পরিচালনা, মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসে জুয়ার টাকা লেনদেন এবং বিভিন্ন জনকে অনলাইন জুয়া খেলার জন্য উৎসাহিত করে
আসছিলেন। এসব মাধ্যমে অনলাইন জুয়ায় অংশগ্রহণ করে অনেক মানুষ সর্বস্বান্ত হয়েছেন।

তিনি আরও জানান, তারা 1xBet অনলাইন জুয়ার প্লাটফর্মের মাধ্যমে দীর্ঘদিন ধরে অনলাইন জুয়া পরিচালনা করে আসছিলেন। এ চক্রের আরও সদস্য দেশের বিভিন্ন এলাকায় রয়েছে, যারা মানুষের কাছ থেকে মাসে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন।

চক্রটির মূল সদস্য দেশের বাইরে থেকে এর নিয়ন্ত্রণ করে। তাদের বিরুদ্ধে বগুড়া সদর থানার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা (নং- ১০৩) দায়ের করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন শুনানি ২৩ ফেব্রুয়ারি
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক:

বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ‘ভুয়া’ জন্মদিন পালন ও মুক্তিযুদ্ধকে ‘কলঙ্কিত’ করার অভিযোগে মানহানির পৃথক দুই মামলায় অভিযোগ গঠন শুনানি পিছিয়ে আগামী ২৩ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করেছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) ঢাকার অতিরিক্ত মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আসাদুজ্জামান নূরের আদালত এ আদেশ দেন।

এদিন দুই মামলার অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু খালেদা জিয়া অসুস্থ থাকায় তার পক্ষে সময় আবেদন করেন আইনজীবী মাসুদ আহম্মেদ তালুকদার। আবেদন মঞ্জুর করে নতুন এদিন ধার্য করেন আদালত।

মুক্তিযুদ্ধকে ‘কলঙ্কিত’ করার অভিযোগে দায়ের করা মামলার বিবরণীতে বলা হয়, ২০০১ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জামায়াতের সঙ্গে জোট বেঁধে নির্বাচিত হয়ে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেন খালেদা জিয়া। তিনি রাজাকার-আলবদর নেতাদের মন্ত্রী-এমপি বানিয়ে তাদের বাড়ি-গাড়িতে স্বাধীন বাংলাদেশের মানচিত্র ও জাতীয় পতাকা তুলে দেন।

২০১৬ সালের ৩ নভেম্বর ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে জিয়াউর রহমান ও খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মানহানির এ মামলা করেন জননেত্রী পরিষদের সভাপতি এবি সিদ্দিকী। ঘটনার তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে তেজগাঁও থানার অফিসার ইনচার্জকে (ওসি) নির্দেশ দেন আদালত।

পরের বছরের ২৫ ফেব্রুয়ারি অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে মর্মে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন রাজধানীর তেজগাঁও থানার পুলিশ পরিদর্শক মশিউর রহমান (তদন্ত)। মামলার অন্য আসামি বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান মৃত মর্মে তাকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

অন্যদিকে ‘ভুয়া’ জন্মদিন পালনের অভিযোগে মামলায় বলা হয়, খালেদা জিয়ার একাধিক জন্মদিন নিয়ে ১৯৯৭ সালে দুটি জাতীয় দৈনিকে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। ওই প্রতিবেদন অনুযায়ী, এসএসসি পরীক্ষার মার্কশিট অনুযায়ী সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীর জন্ম তারিখ ১৯৪৬ সালের ৫ সেপ্টেম্বর।

১৯৯১ সালে প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে একটি দৈনিকে তার জীবনী নিয়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনে জন্মদিন ১৯৪৫ সালের ১৯ আগস্ট লেখা হয়। আর বিয়ের কাবিননামায় জন্মদিন উল্লেখ করা হয় ১৯৪৪ সালের ৪ আগস্ট। সর্বশেষ ২০০১ সালে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট অনুযায়ী খালেদা জিয়ার জন্মদিন ১৯৪৬ সালের ৫ আগস্ট।

মামলার অভিযোগে আরও বলা হয়, বিভিন্ন মাধ্যমে তার পাঁচটি জন্মদিন পাওয়া গেলেও কোথাও ১৫ আগস্ট জন্মদিনের তথ্য পাওয়া যায়নি। এ অবস্থায় তিনি পাঁচটি জন্মদিনের একটিও পালন না করে ১৯৯৬ সাল থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকীর দিন অর্থাৎ জাতীয় শোক দিবসে (১৫ আগস্ট) আনন্দ-উৎসব করে কেক কেটে জন্মদিন পালন করে আসছেন।

‘ভুয়া’ জন্মদিন পালনের অভিযোগে ২০১৬ সালের ৩০ আগস্ট বাদী হয়ে এ মামলাটি দায়ের করেন ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক গাজী জহিরুল ইসলাম। ২০১৮ সালের ৩১ জুলাই এ দুই মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন মঞ্জুর করেন ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কেএম ইমরুল কায়েশ।

হাইকোর্টে ক্ষমা চাইলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:  

দেশের কারাগারগুলোতে শূন্যপদে ৪৮ চিকিৎসক নিয়োগের নির্দেশনা নির্ধারিত সময়ে বাস্তবায়ন না করায় হাইকোর্টে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম।

মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের ও বিচারপতি মোহাম্মদ আলীর হাইকোর্ট বেঞ্চে লিখিতভাবে তিনি ক্ষমা প্রার্থনা করেন।

এর আগে গত ১৭ জানুয়ারি দেশের কারাগারগুলোতে শূন্যপদে ৪৮ জন চিকিৎসক নিয়োগের নির্দেশনা বাস্তবায়ন না করায় তার ব্যাখ্যা দিতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে তলব করেন হাইকোর্ট। ২৪ জানুয়ারি তাকে সশরীরে হাজির হয়ে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়।
বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের ও বিচারপতি মোহাম্মদ আলীর হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মো. জে আর খান রবিন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার।

এর আগে গত ১৩ ডিসেম্বর দেশের কারাগারগুলোতে শূন্যপদে ৪৮ জন চিকিৎসক নিয়োগের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। স্বাস্থ্য সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব ও কারা কর্তৃপক্ষকে এই আদেশ বাস্তবায়ন করতে বলা হয়।

হাইকোর্টের রায়ে সন্তানের অভিভাবক হিসেবে মায়ের স্বীকৃতি
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:  

এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষাসহ সব ধরনের ফরম পূরণে সন্তানের অভিভাবক হিসেবে মাকেও স্বীকৃতি দিয়ে রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট। আজ মঙ্গলবার বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় দেন।

আদালতে রিটের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম, অ্যাডভোকেট আইনুন্নাহার লিপি ও অ্যাডভোকেট আয়েশা আক্তার। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত দাশগুপ্ত।

এর আগে গত ১৬ জানুয়ারি সন্তানের অভিভাবক হিসেবে মা স্বীকৃতি পাবেন কিনা—এ বিষয়ে শুনানি শেষে রায়ের জন্য আজকের দিন ধার্য করা হয়।


রায়ের পর অ্যাডভোকেট আইনুন্নাহার সিদ্দিকা বলেন, হাইকোর্ট রায়ে বলেছেন, পিতৃপরিচয়হীন সন্তান, যৌনকর্মীদের সন্তান যাদের বাবার পরিচয় নেই, তারা শুধু মায়ের নাম দিয়েই ফরম পূরণ করতে পারবেন। সংবিধানে সমতার কারণে বাবা অথবা মায়ের পরিচয় থাকলেই যে কোনো ফরম পূরণ বা রেজিস্ট্রেশন পূরণ করার অধিকার পাবে।

অ্যাডভোকেট আয়েশা আক্তার বলেন, আজকের রায়ের ফলে এসএসসি, এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণ, পাসপোর্টের ফরম পূরণসহ সব ফরম পূরণে বাবা অথবা মা অথবা আইনগত অভিভাবকের নাম লেখা যাবে। এই রায়ের ফলে বাবা-মায়ের উভয়ের নাম লেখার বাধ্যবাধকতা থাকল না। শুধু মায়ের নাম লিখেও ফরম পূরণ করা যাবে।

সাংবাদিক রোজিনার মামলার তদন্ত পিবিআইতে
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের মামলার তদন্ত করতে পিবিআইকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। সোমবার (২৩ জানুয়ারি) ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেন এ নির্দেশ দেন।

মামলার বাদী শিব্বির আহমেদের ‘নারাজি’ আবেদন মঞ্জুর করে আদালত পিবিআইকে মামলাটি পুনরায় তদন্তের নির্দেশ দেন।

এর আগে, গত বছরের ৪ জুলাই রোজিনাকে মামলার দায় থেকে অব্যাহতির আবেদন করে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন তদন্তকারী গোয়েন্দা পুলিশ।
প্রতিবেদনে ঘটনার সত্যতা পায়নি বলেও উল্লেখ করেন তদন্ত কর্মকর্তা।

উল্লেখ্য, ২০২১ সালের ১৭ মে নথি সরানোর অভিযোগে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিবের একান্ত সচিব মো. সাইফুল ইসলাম ভূঞার কক্ষে রোজিনাকে প্রায় ৬ ঘণ্টা আটকে রাখা হয়। পরে ওই দিন রাতেই তার বিরুদ্ধে নথি চুরি ও ছবি তোলার অভিযোগ মামলা হয়।

পরে ওই বছরের ২৩ মে পাসপোর্ট জমা দেওয়ার শর্তে পাঁচ হাজার টাকা মুচলেকায় তাকে জামিন দেন আদালত।

জামিন পেলেন বিএনপি নেতা খোকন ও মিলন
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক:

নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনায় করা মামলায় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন ও গাজীপুর বিএনপির সভাপতি ফজলুল হক মিলনকে জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট।

সোমবার (২৩ জানুয়ারি) বিচারপতি মো. আকরাম হোসেন চৌধুরী ও বিচারপতি মো. শাহেদ নূরউদ্দিনের হাইকোর্ট বেঞ্চ তাদের জামিন দেন। আদালতে বিএনপির নেতাদের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী জয়নুল আবেদীন।

একইসাথে জামিনের পাশাপাশি খায়রুল কবির খোকন-ফজলুল হক মিলনের নিয়মিত জামিন প্রশ্নে রুল জারি করেছেন আদালত। চার সপ্তাহের মধ্যে সংশ্লিষ্টদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

২০২২ সালের ৭ ডিসেম্বর নয়াপল্টনে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের পর পুলিশের ওপর হামলা, হামলার পরিকল্পনা ও উস্কানির অভিযোগে গত ৮ ডিসেম্বর পল্টন থানায় মামলা করে পুলিশ। এ ঘটনায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলের বেশ কয়েকজন সিনিয়র নেতাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

চিত্রনায়িকা শিমু হত্যা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক:

নব্বইয়ের দশকের জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা শিমু হত্যা মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়েছে। সোমবার (২৩ জানুয়ারি) ঢাকার চতুর্থ অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ শফিকুল ইসলামের আদালতে মামলার বাদী শিমুর ভাই হারুন অর রশীদ জবানবন্দি দেন।

জবানবন্দী শেষে আসামিপক্ষের আইনজীবীরা হারুনকে জেরা শুরু করেন। তবে এদিন জেরা শেষ হয়নি।তাই আদালত আগামী ২৬ জানুয়ারি অবশিষ্ট জেরা ও পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য করেন।
মামলার দুই আসামি হলেন- শিমুর স্বামী খন্দকার শাখাওয়াত আলীম নোবেল ও তার বন্ধু এস এম ওয়াই আব্দুল্লাহ ফরহাদ। বাদীপক্ষের আইনজীবী শফিকুল ইসলাম সুমন এ তথ্য জানান। এদিন শুনানিকালে দুই আসামিকে কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা হয়।

রাইমা ইসলাম শিমু হত্যা মামলায় গত ২৯ নভেম্বর একই আদালত আসামিদের নামে চার্জগঠনের মাধ্যমে বিচার শুরুর আদেশ দেন আদালত। শিমু হত্যার পেছনে সে সময়ে তারকাদের অনেকের নাম ওঠে। তবে শিমুর ভাই থানায় শিমুর স্বামী খন্দকার শাখাওয়াত আলীম নোবেল ও তার বন্ধু এস এম ওয়াই আব্দুল্লাহ ফরহাদের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

মামলার এজাহারে বলা হয়, ২০২২ সালের ১৭ জানুয়ারি সকাল ১০টায় কেরানীগঞ্জ থেকে নায়িকা শিমুর বস্তাবন্দী মরদেহ উদ্ধার করে কেরানীগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ। শিমুকে হত্যার ঘটনায় তার ভাই হারুন অর রশীদ বাদী হয়ে কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।  

ওইদিন রাতেই দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরদিন এ দুই আসামিকে আদালতে হাজির করলে মামলার তদন্তের স্বার্থে বিচারক তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। রিমান্ড শেষ হওয়ার পর থেকে আসামিরা কারাগারে আছেন। চিত্রনায়িকা রাইমা ইসলাম শিমুর। দাম্পত্য কলহের জেরে ১৬ জানুয়ারি সকাল আনুমানিক ৭-৮টার মধ্যে যেকোনো সময় খুন হন শিমু।

মানবতাবিরোধী অপরাধ : ত্রিশালের পলাতক ৬ জনের মৃত্যুদণ্ড
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক : মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় ময়মনসিংহের ত্রিশালের পলাতক ছয় জনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

সোমবার আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ এ রায় ঘোষণা করেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- মোখলেছুর রহমান মুকুল, শামসুল হক ফকির, নুরুল হক ফকির, সুলতান মাহমুদ ফকির, নাকিব হোসেন আদিল সরকার ও সাইদুর রহমান রতন। এর আগে গত বছরের ৫ ডিসেম্বর উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে আদালত মামলাটি রায় ঘোষণার জন্য অপেক্ষমান রাখেনন।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন- সুলতান মাহমুদ সীমন ও তাপস কান্তি বল। আর আসামিদের পক্ষে ছিলেন- গাজী এম এইচ তামিম।

এ মামলার তদন্ত শুরু হয় ২০১৭ সালের ২৬ জানুয়ারি। ওই বছরের ৩১ ডিসেম্বর তদন্ত সম্পন্ন করে প্রতিবেদন দাখিল করে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থা।

পরে ২০১৮ সালের ৫ ডিসেম্বর এ মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়। তখন এ মামলায় আসামি ছিলেন নয়জন। এর মধ্যে গ্রেফতার দুইজন ও পলাতক এক আসামি মারা যান।

মামলায় ১৯ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছে। সবশেষ যুক্তিতর্ক শেষে গত বছরের ৫ ডিসেম্বর মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমান রাখেন ট্রাইব্যুনাল। এ মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে ছয়টি অভিযোগ আনা হয়।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে মামলা দায়েরের তুলনায় নিষ্পত্তি সন্তোষজনক: জেলা ও দায়রা জজ
                                  

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি:

চাঁপাইনবাবগঞ্জের জেলা ও দায়রা জজ মোহা. আদীব আলী বলেছেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জে মামলা দায়েরের তুলনায় নিষ্পত্তি সন্তোষজনক। পুলিশসহ অংশীদারি সব প্রতিষ্ঠান ও ম্যাজিস্ট্রেটরা একে অপরের প্রতি সম্মান রেখে নিজেদের এখতিয়ারভুক্ত কাজগুলো দ্বায়িত্বের সঙ্গে করছেন বলেই মামলা নিষ্পত্তি সম্ভব হচ্ছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জে কর্মরত জুডিসিয়াল ম্যাজিসস্ট্রেটরা অনেক বেশি দ্বায়িত্বশীল ও পরিশ্রমী। আদালতের নির্ধারিত সময়ের বাইরেও তারা ১৬৪ ধারায় আসামীদের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দী গ্রহণ করে থাকেন। তাদের কর্মদক্ষতার কারণে বিভিন্ন মামলা যথাসমেয় নিষ্পত্তি হচ্ছে। বিচার সংশ্লিষ্টরা নিজেদের কাজগুলো সময় মতো করলে মামলা নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে চাঁপাইনবাবগঞ্জ আদালত দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে।
   
পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেসি সম্মেলন বিষয়ে জেলা ও দায়রা জজ বলেন, পুলিশসহ অংশীদারি সব প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে ম্যাজিস্ট্রেটদের বিচার সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতা নিয়ে আলোচনা ও সমাধানের পথ বের হয়। বিচার বিভাগ সব অংশীদারের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সাধারণ মানুষের ন্যায়বিচার পাওয়ার অধিকার নিশ্চিত করা হয়। চাঁপাইনবাবগঞ্জের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের কনফারেন্স রুমে শনিবার আয়োজিত ‘পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেসি সম্মেলন-২০২৩’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সম্মেলনে চাঁপাইনবাবগঞ্জের  জেলা ও দায়রা জজ মোহা. আদীব আলী প্রধান অতিথি ছিলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কুমার শিপন মোদক। সম্মেলনে সঞ্চালনা করেন সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. হুমায়ূন কবীর।

সভায় পুলিশ সুপার এএইচএম আবদুর রকিব, সিভিল সার্জন ডাঃ মো. মাহমুদুর রশিদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক পাপিয়া সুলতানা ও পিপি নাজমুল আজম উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন জেলা আইনজীবী সমিতির নেতারা, র‌্যাব, বিজিবি, বিভিন্ন থানার ওসিসহ বিচার বিভাগের সংশ্লিষ্ট দফতরের কর্মকর্তারা।

সম্মেলনে সমন জারী, পুলিশ কর্তৃক মামলায় সাক্ষী উপস্থিতকরণ, আদালতে যাওয়ার পথে এবং আদালত চত্বরে সাক্ষীদের নিরাপত্তা, সময়মত ময়না তদন্ত প্রতিবেদন, বিচারক ও ম্যাজিস্ট্রেটদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা, বিচারাধীন আসামীদের জেল-হাজত থেকে আদালতে সময়মত উপস্থিতকরণ, পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেসীর মধ্যে সমন্বয়, মামলার দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য গ্রহণীয় পদক্ষেপসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হয়।
 
শেষে সিজেএম কুমার শিপন মোদক সম্মেলনে হাজির হওয়ায় উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।


   Page 1 of 99
     আইন - অপরাধ
রাজধানীতে ‘ছোঁ মারা’ চক্রের ১৬ সদস্য গ্রেপ্তার
.............................................................................................
আগারগাঁও পাসপোর্ট অফিসে দালালচক্রের ২৬ সদস্যকে দণ্ড
.............................................................................................
একদিন বাবা আরেকদিন মায়ের কাছে থাকবে জাপানি ছোট মেয়ে
.............................................................................................
একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধী মজিদ গ্রেপ্তার
.............................................................................................
পনেরো বছরে ১০০০ মোটরসাইকেল চুরি করেছে খালেক
.............................................................................................
ভিকারুননিসায় ৪১ সহোদরা-যমজকে ভর্তির নির্দেশ
.............................................................................................
নিবন্ধন বাতিল : আপিল প্রস্তুতে জামায়াতকে ২ মাস সময়
.............................................................................................
অনলাইন জুয়া প্ল্যাটফর্ম পরিচালনার দায়ে দুইজন গ্রেফতার
.............................................................................................
খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন শুনানি ২৩ ফেব্রুয়ারি
.............................................................................................
হাইকোর্টে ক্ষমা চাইলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক
.............................................................................................
হাইকোর্টের রায়ে সন্তানের অভিভাবক হিসেবে মায়ের স্বীকৃতি
.............................................................................................
সাংবাদিক রোজিনার মামলার তদন্ত পিবিআইতে
.............................................................................................
জামিন পেলেন বিএনপি নেতা খোকন ও মিলন
.............................................................................................
চিত্রনায়িকা শিমু হত্যা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু
.............................................................................................
মানবতাবিরোধী অপরাধ : ত্রিশালের পলাতক ৬ জনের মৃত্যুদণ্ড
.............................................................................................
চাঁপাইনবাবগঞ্জে মামলা দায়েরের তুলনায় নিষ্পত্তি সন্তোষজনক: জেলা ও দায়রা জজ
.............................................................................................
আসামিরা ঘুরছে প্রকাশ্যে, বাদীপক্ষ আতঙ্কে
.............................................................................................
জ্যেষ্ঠ কন্যা মায়ের সঙ্গে ও মেজ কন্যা বাবার সঙ্গে থাকবে
.............................................................................................
মুফতি কাজী ইব্রাহিম জামিনে মুক্ত
.............................................................................................
ব্যাংক ও আর্থিক খাত নিয়ে গুজব রটানোর দায়ে ৪ জন গ্রেফতার
.............................................................................................
অভিভাবক হিসেবে মায়ের স্বীকৃতির বিষয়ে রায় ২৪ জানুয়ারি
.............................................................................................
তারেক-জোবায়দাকে আদালতে হাজির হতে গেজেট প্রকাশের নির্দেশ
.............................................................................................
সন্তানের অভিভাবকের স্বীকৃতি নিয়ে রায় মঙ্গলবার
.............................................................................................
চাকরি ফেরত পাবেন না ৮৫ নির্বাচন কর্মকর্তা
.............................................................................................
কেরানীগঞ্জের আতঙ্ক `কালা জরিপ` আটক
.............................................................................................
নাইকো মামলায় খালেদার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন শুনানি ৩০ জানুয়ারি
.............................................................................................
জামায়াত আমির শফিকুরের জামিন নামঞ্জুর
.............................................................................................
‘শিশুবক্তা’ রফিকুল ইসলাম মাদানীর বিচার শুরু
.............................................................................................
জামিনে মুক্ত হাজী সেলিম
.............................................................................................
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডিজিকে হাইকোর্টে তলব
.............................................................................................
মুফতি ইব্রাহিমের কারাদণ্ড
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটূক্তি : স্মৃতির জামিন আপিলে বহাল
.............................................................................................
১৫ বছর আত্মগোপনে থাকা মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার
.............................................................................................
ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু, ৪ চিকিৎকের বিরুদ্ধে মামলা
.............................................................................................
বান্দরবানে আরও ৫ জঙ্গি গ্রেপ্তার
.............................................................................................
ডেসটিনি চেয়ারম্যানের জামিন আবেদন খারিজ
.............................................................................................
দুবাইয়ে ৪৫৯ বাংলাদেশির সম্পত্তি নিয়ে রিট, শুনানি রবিবার
.............................................................................................
কারাগার থেকে মুক্তি পেলেন বুশরা
.............................................................................................
বিটিআরসির পাওনা পরিশোধ করতেই হবে ৩ মোবাইল কোম্পানিকে
.............................................................................................
রিজেন্ট সাহেদের জামিন বহাল
.............................................................................................
পরীমণির মাদক মামলার কার্যক্রম স্থগিত
.............................................................................................
ফারদিন হত্যা মামলায় জামিন পেলেন বুশরা
.............................................................................................
মির্জা আব্বাসের বিরুদ্ধে হাজতি পরোয়ানা
.............................................................................................
ঢাবি শিক্ষার্থী বিপু হত্যা মামলায় পাঁচজনকে যাবজ্জীবন
.............................................................................................
সাবেক এসপি বাবুল আক্তারের জামিন আবেদন নামঞ্জুর
.............................................................................................
ফারদিন হত্যা: বুশরার জামিন শুনানি শেষ, আদেশ পরে
.............................................................................................
মির্জা ফখরুল-আব্বাসের জামিন চেম্বার আদালতে স্থগিত
.............................................................................................
ফখরুল-আব্বাসের জামিন স্থগিত চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আপিল
.............................................................................................
খালেদার ২ মামলায় চার্জ শুনানি পিছিয়ে ২৬ জানুয়ারি
.............................................................................................
হাইকোর্টে ফখরুল-আব্বাসের জামিন আবেদন, শুনানি কাল
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Dynamic Solution IT