রবিবার, ২৯ মে 2022 বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   আইন - অপরাধ -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
স্ত্রীর বড় বোনকে ধর্ষণ করে ভিডিও ধারণ: ছোট বোনের জামাই গ্রেফতার

নোয়াখালী প্রতিনিধি :      
নোয়াখালীর চাটখিলে স্ত্রীর বড় বোনকে (৩২) ধর্ষণ করে ভিডিও চিত্র ধারণের অভিযোগে ছোট বোনের জামাইকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত আবু বক্কর ছিদ্দিক উল্যা (৩০) উপজেলার চাটখিল পৌরসভার ৪নম্বর ওয়ার্ডের ভীমপুর গ্রামের মৃত আবুল হাশেমের ছেলে।  
 
গত সোমবার (২৩ মে) সকালে গ্রেফতারকৃত আসামিকে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এর আগে গতকাল রোববার বিকাল ৫টার দিকে উপজেলার চাটখিল পৌরসভার ভীমপুর গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করে চাটখিল থানার পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ছিদ্দিক উল্যা ২০২০ সালে স্ত্রীর বড় বোনের ঘরে ঢুকে সুকৌশলে ঠান্ডা পানীয়র সাথে ঘুমের ওষুধ সেবনপূর্বক অচেতন করে তাকে ধর্ষণ করে ধর্ষণের ভিডিও চিত্র মোবাইলে ধারণ করে রাখে। পরে ভিডিও চিত্র ভিকটিমের স্বামী, আত্মীয়-স্বজন এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল করার হুমকি দিয়ে বিদেশ যাওয়ার জন্য ৫ লক্ষ টাকা আদায় করে। এরপর ২০২১ সালে ৭-৮ মাস প্রবাসে থেকে দেশে ফিরে পুনরায় ভিকটিমকে বিভিন্ন ধরণের ভয়ভীতি প্রদর্শন সহ তার স্বামীর সংসার হইতে বিচ্ছেদ করবে বলে পূর্বের ছবি তাহার স্বামী ও আত্মীয়-স্বজন সহ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে ভিকটিমকে তার স্বামীর নিকট হতে ২০ লক্ষ টাকা এনে দেওয়ার জন্য বলে। একপর্যায়ে ভিকটিম তার ব্যবহৃত ৮ ভরি স্বর্ণালংকার এবং নগদ ১০ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা ছোট বোনের স্বামী ছিদ্দিক উল্যাকে দেন। পরবর্তীতে বিষয়টি ভিকটিম তার স্বামীকে অবগত করলে তার স্বামী স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে অবহিত করলে ছিদ্দিক ওই গৃহবধূর স্বামীসহ তার পরিবারের সদস্যদের খুুন করার হুমকি দেয়। একপর্যায়ে চলতি মাসের ১৯ মে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ভীমপুর গ্রামের দাস বাড়ির সামনে গৃহবধূর স্বামীর ওপর হামলা চালায়। শেষে গতকাল রোববার পূর্বের ঘটনাসহ উল্লেখ করে  চাটখিল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন ছিদ্দিক উল্যার স্ত্রীর বড় বোন নিজেই।  

বিষয়টি নিশ্চিত করে চাটখিল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হুমায়ন কবির বলেন, এ ঘটনায় ভুক্তভোগী গৃহবধূ নারীও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ও ২০১২ সালের পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে ছিদ্দিক উল্যাহসহ ২জনের নাম উল্লেখ করে ৩-৪জনকে অজ্ঞাত আসামি করে মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় আসামিকে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।  

পরিদর্শক তদন্ত আরো জানায়, ভিকটিমের ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে এবং ডিএনএ টেস্টের জন্য ঢাকায় পাঠানো হবে। এছাড়া অপর আসামিকে গ্রেফতারে চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।

স্ত্রীর বড় বোনকে ধর্ষণ করে ভিডিও ধারণ: ছোট বোনের জামাই গ্রেফতার
                                  

নোয়াখালী প্রতিনিধি :      
নোয়াখালীর চাটখিলে স্ত্রীর বড় বোনকে (৩২) ধর্ষণ করে ভিডিও চিত্র ধারণের অভিযোগে ছোট বোনের জামাইকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত আবু বক্কর ছিদ্দিক উল্যা (৩০) উপজেলার চাটখিল পৌরসভার ৪নম্বর ওয়ার্ডের ভীমপুর গ্রামের মৃত আবুল হাশেমের ছেলে।  
 
গত সোমবার (২৩ মে) সকালে গ্রেফতারকৃত আসামিকে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এর আগে গতকাল রোববার বিকাল ৫টার দিকে উপজেলার চাটখিল পৌরসভার ভীমপুর গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করে চাটখিল থানার পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ছিদ্দিক উল্যা ২০২০ সালে স্ত্রীর বড় বোনের ঘরে ঢুকে সুকৌশলে ঠান্ডা পানীয়র সাথে ঘুমের ওষুধ সেবনপূর্বক অচেতন করে তাকে ধর্ষণ করে ধর্ষণের ভিডিও চিত্র মোবাইলে ধারণ করে রাখে। পরে ভিডিও চিত্র ভিকটিমের স্বামী, আত্মীয়-স্বজন এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল করার হুমকি দিয়ে বিদেশ যাওয়ার জন্য ৫ লক্ষ টাকা আদায় করে। এরপর ২০২১ সালে ৭-৮ মাস প্রবাসে থেকে দেশে ফিরে পুনরায় ভিকটিমকে বিভিন্ন ধরণের ভয়ভীতি প্রদর্শন সহ তার স্বামীর সংসার হইতে বিচ্ছেদ করবে বলে পূর্বের ছবি তাহার স্বামী ও আত্মীয়-স্বজন সহ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে ভিকটিমকে তার স্বামীর নিকট হতে ২০ লক্ষ টাকা এনে দেওয়ার জন্য বলে। একপর্যায়ে ভিকটিম তার ব্যবহৃত ৮ ভরি স্বর্ণালংকার এবং নগদ ১০ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা ছোট বোনের স্বামী ছিদ্দিক উল্যাকে দেন। পরবর্তীতে বিষয়টি ভিকটিম তার স্বামীকে অবগত করলে তার স্বামী স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে অবহিত করলে ছিদ্দিক ওই গৃহবধূর স্বামীসহ তার পরিবারের সদস্যদের খুুন করার হুমকি দেয়। একপর্যায়ে চলতি মাসের ১৯ মে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ভীমপুর গ্রামের দাস বাড়ির সামনে গৃহবধূর স্বামীর ওপর হামলা চালায়। শেষে গতকাল রোববার পূর্বের ঘটনাসহ উল্লেখ করে  চাটখিল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন ছিদ্দিক উল্যার স্ত্রীর বড় বোন নিজেই।  

বিষয়টি নিশ্চিত করে চাটখিল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হুমায়ন কবির বলেন, এ ঘটনায় ভুক্তভোগী গৃহবধূ নারীও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ও ২০১২ সালের পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে ছিদ্দিক উল্যাহসহ ২জনের নাম উল্লেখ করে ৩-৪জনকে অজ্ঞাত আসামি করে মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় আসামিকে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।  

পরিদর্শক তদন্ত আরো জানায়, ভিকটিমের ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে এবং ডিএনএ টেস্টের জন্য ঢাকায় পাঠানো হবে। এছাড়া অপর আসামিকে গ্রেফতারে চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।

১০দিনেও উদ্ধার হয়নি স্কুল ছাত্রী রেশমা
                                  

ঘোড়াঘাট (দিনাজপুর)প্রতিনিধি :
দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা শ্যামপুর গ্রামের স্কুল ছাত্রী মোছাঃ রেশমা আক্তার (১৩) অপহরণের ১০দিনেও উদ্ধার হয়নি। এ দিকে অপহিতার নানা আবুল কালাম আজাদ তিনি জানান গত ১৪ই মে বিকালে পাশের বাড়ীতে বেড়াতে যেয়ে আর ফিরে আসেনি।

সেই থেকে অপহিতা রেশমাকে বিভিন্ন আত্বিয় স্বজনদের বাড়ীতে খোজ করেও তাকে না পেয়ে ঘোড়াঘাট থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করলেও ১০দিনেও তাকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয়নি।

ঘটনার সুত্রে জানাযায় মোছাঃ রেশমা আক্তার জম্মের পর থেকে ঘোড়াঘাট উপজেলার শ্যামপুর গ্রামের নানা আবুল কালাম আজাদের বাড়ীতে লালন পালন হয়ে, সে ৬ষ্ঠ শ্রেনীতে ওসমানপুর বালিকা স্কুলে লেথাপড়া করাকালে পাশের বাড়ী হিন্দু পরিবারে লোকজনের সাথে ওঠাবসা করতেন।

সেই সূত্রে অবিনাশ চন্দ্রর ছেলে শ্রী অন্তিম চন্দ্র (১৮) এর সাথে জানা শোনা হয়। এই জানা শোনার সূত্র ধরে ঘটনার দিন থেকে তাকে পাওয়া যায়নি। এ দিকে রেশমার পরিবার থেকে ধারণা অন্তিম চন্দ্র তাকে অপহরণ করেছে।

এ ঘটনায় রেশমা আক্তারের নানা আবুল কালাম আজাদ বাদী হয়ে ঘোড়াঘাট থানায় একটি অপহরণ মামলার অভিযোগ দায়ের করেছে। এ দিকে রেশমা আক্তার অপহরণের ১০দিনেও তাকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয়নী বলে জানা যায়।

আত্মসমর্পণের পর কারাগারে প্রদীপের স্ত্রী চুমকি
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদক
দুর্নীতি মামলায় আদালতে আত্মসমর্পণ করেছেন অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি প্রদীপ কুমার দাশের স্ত্রী চুমকি করন। পরে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন।

সোমবার (২৩ মে) চট্টগ্রাম বিভাগীয় স্পেশাল জজ আদালতের বিচারক মুন্সী আব্দুল মজিদের আদালতে আত্মসমর্পণ করেন চুমকি। এরপর জামিন আবেদন করলে তা নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দুদকের আইনজীবী মাহমুদুল হক। তিনি বলেন, প্রদীপ ও চুমকি করনের বিরুদ্ধে দায়ের করা দুর্নীতি মামলার সাক্ষ্যগ্রহণের নির্ধারিত দিন আজ। সকালে চুমকি করন আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। এরপর আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

তিনি আরও বলেন, প্রদীপ কুমার দাশ ও তার স্ত্রী চুমকির বিরুদ্ধে দায়ের করা দুর্নীতি মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ চলছে।

গত ১৫ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম বিভাগীয় স্পেশাল জজ আদালতের বিচারক মুন্সী আব্দুল মজিদের আদালত দুর্নীতি মামলার চার্জ গঠনের মাধ্যমে প্রদীপ ও তার স্ত্রী চুমকির বিরুদ্ধে বিচার শুরুর আদেশ দিয়েছিলেন।

গত ২৬ জুলাই আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুদক চট্টগ্রামের সহকারী পরিচালক মো. রিয়াজ উদ্দিন। প্রদীপ গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে থাকলেও এত দিন পলাতক ছিলেন তার স্ত্রী চুমকি।

জানা গেছে, চুমকির ৪ কোটি ৮০ লাখ ৬৪ হাজার ৬৫১ টাকার স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের বিপরীতে বৈধ ও গ্রহণযোগ্য আয় পাওয়া যায় ২ কোটি ৪৪ লাখ ৬৬ হাজার ২৩৪ টাকা। বাকি সম্পদ অর্থাৎ ২ কোটি ৩৫ লাখ ৯৮ হাজার ৪১৭ টাকার সম্পদ অবৈধভাবে অর্জনের প্রমাণ পেয়েছে দুদক।

চট্টগ্রামের পাথরঘাটায় ছয়তলা বাড়ি, ষোলশহরে বাড়ি, ৪৫ ভরি স্বর্ণ, একটি কার ও মাইক্রোবাস, কক্সবাজারের একটি ফ্ল্যাট ও ব্যাংক হিসাবের মালিক প্রদীপের স্ত্রী চুমকি। প্রদীপের ঘুষ ও দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত অর্থে স্ত্রী চুমকি এসব সম্পদ অর্জন করেন বলে দুর্নীতি দমন কমিশনের তদন্তে উঠে এসেছে। এছাড়া চুমকি নিজেকে মাছ ব্যবসায়ী দাবি করলেও তার কোনো প্রমাণ পায়নি দুদক।

২০২০ সালের ৩১ জুলাই টেকনাফের বাহারছড়ায় পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা। এ ঘটনায় একই বছরের ৬ আগস্ট থেকে কারাগারে রয়েছেন প্রদীপ। সিনহা হত্যা মামলায় প্রদীপকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

এখানেই রাত কাটিয়েছেন নর্থ সাউথের চার ট্রাস্টি
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদক
নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের চার সদস্য ৩০৩ কোটি ৮২ লাখ টাকা আত্মসাতের মামলায় তাদের জামিন আবেদন খারিজ করে রাতেই শাহবাগ থানায় পাঠান আদালত। শাহবাগ থানার হাজতে রাত কেটেছে তাদের।

ট্রাস্টি বোর্ডের চার সদস্য হলেন— এম এ কাশেম, বেনজীর আহমেদ, রেহানা রহমান ও মোহাম্মদ শাহজাহান।

শাহবাগ থানা সূত্র জানায়, রাতে আসামিরা তাদের পরিবারের কাছ থেকে জামাকাপড় ও ওষুধপত্র নিয়ে হাজতে ঢুকেন। হাজতে তাদের প্রত্যেকের জন্য দেওয়া হয় চেয়ার ও কাঁথা-বালিশ। আসামিরাও হাজতে রাত কাটানোর জন্য জিনিসপত্র নিয়ে আসেন। শাহবাগ থানা থেকে তাদের খাবার ব্যবস্থা করা হলেও প্রত্যেকে নিজ নিজ বাসা থেকে চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী রাতের খাবার আনিয়েছেন।

থানা সূত্র আরও জানায়, আদালতের নির্দেশে তাদের হাজতে রাখার কথা। কিন্তু শাহবাগ থানার হাজতখানা অপরিচ্ছন্ন থাকায় পরিচ্ছন্নকর্মীরা রাতেই ডিটারজেন্ট দিয়ে এটি পরিষ্কার করেন। দেওয়া হয় এয়ার ফ্রেশনার। অন্য সব হাজতির সঙ্গেই রাখা হয় তাদের। মহিলা সেলে রাখা হয় রেহানা রহমানকে।

শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মওদুদ হাওলাদার বলেন, রাতে তারা থানা হাজতে ছিলেন। আদালতের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাদের আজ নিম্ন আদালতে নেওয়া হবে।

আত্মসাতের মামলায় নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের চার সদস্যের জামিন আবেদন রোববার খারিজ করে দেন হাইকোর্ট। তাদের শাহবাগ থানা পুলিশের হাতে তুলে দিয়ে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে নিম্ন আদালতে হাজির করতে বলেন আদালত। বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালত আদেশে বলেন, আবেদনকারী অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ৩০৩ কোটি ৮২ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে। অপরাধের গুরুত্ব বিবেচনায় আবেদনকারী অভিযুক্তরা আগাম জামিন পেতে পারেন না। তাছাড়া আগাম জামিন পাওয়ার মতো যৌক্তিক, গ্রহণযোগ্য কারণ তারা আদালতকে দেখাতে পারেননি। যে কারণে আগাম জামিনের আবেদন সরাসরি খারিজ করে তাদের পুলিশে সোপর্দ করা হলো। শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) নির্দেশ দেওয়া হলো, হেফাজতে পাওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে যেন আসামিদের সংশ্লিষ্ট আদালতে হাজির করা হয়।

রোববার (২২ মে) রাতে শাহবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মওদুদ হাওলাদার বলেন, হাইকোর্ট নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের চার সদস্যের জামিন আবেদন খারিজ করে তাদের আমাদের হাতে তুলে দিয়েছেন। রাত ১১টার দিকে তাদের থানায় আনা হয়েছে। তাদের সোমবার নিম্ন আদালতে সোপর্দ করা হবে।

ওসি বলেন, যেহেতু মামলাটি দুদক তদন্ত করছে, তাই আমার জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ড আবেদন করব না। আমরা দায়িত্ব অনুযায়ী তাদের আদালতে সোপর্দ করব।

গত ১২ মে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের জমি কেনা বাবদ অতিরিক্ত ৩০৩ কোটি ৮২ লাখ টাকা ব্যয় দেখিয়ে তা আত্মসাতের অভিযোগে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যানসহ ছয় জনের বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক। দুদকের উপ-পরিচালক মো. ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী ঢাকায় এ মামলা করেন বলে কমিশনের মহাপরিচালক সাঈদ মাহবুব খান জানান।

মামলার আসামিরা হলেন— নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান আজিম উদ্দিন আহমেদ, বোর্ডের চার সদস্য এম এ কাশেম, বেনজীর আহমেদ, রেহানা রহমান ও মোহাম্মদ শাহজাহান এবং আশালয় হাউজিং অ্যান্ড ডেভেলপার্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমিন মো. হিলালী।

এজাহারে বলা হয়, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে পাশ কাটিয়ে ট্রাস্টি বোর্ডের কয়েকজন সদস্যের অনুমোদন বা সম্মতির মাধ্যমে ক্যাম্পাস উন্নয়নের নামে ৯ হাজার ৯৬ দশমিক ৮৮ ডেসিমেল জমির দাম ৩০৩ কোটি ৮২ লাখ ১৩ হাজার ৪৯৭ টাকা বেশি দেখিয়ে তা আত্মসাৎ করা হয়েছে।

আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, বিশ্ববিদ্যালয়ের তহবিলের টাকা আত্মসাতের হীন উদ্দেশ্যে কম দামে জমি কেনা সত্ত্বেও বেশি দাম দেখিয়ে তারা প্রথমে বিক্রেতার নামে টাকা দেন। পরে বিক্রেতার কাছ থেকে নিজেদের লোকের নামে নগদ চেকের মাধ্যমে টাকা উত্তোলন করে আবার নিজেদের নামে এফডিআর করে রাখেন। পরে নিজেরা ওই এফডিআরের অর্থ উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন।

‘অবৈধ ও অপরাধলব্ধ আয়ের অবস্থান গোপনের জন্য ওই অর্থ হস্তান্তর ও স্থানান্তরের মাধ্যমে মানি লন্ডারিংয়ের অপরাধও সংঘটন করেন।’

মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৪০৯/১০৯/৪২০/১৬১/১৬৫ ক ধারা এবং ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারা এবং মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন-২০১২ এর ৪(২)(৩) ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন-২০১০ অনুযায়ী নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনার সর্বোচ্চ কর্তৃপক্ষ বোর্ড অব ট্রাস্টিজ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের মেমোরেন্ডাম অব অ্যাসোসিয়েশন অ্যান্ড আর্টিকেলস (রুলস অ্যান্ড রেগুলেশনস) অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয় একটি দাতব্য, কল্যাণমুখী, অবাণিজ্যিক ও অলাভজনক প্রতিষ্ঠান।

হাজী সেলিম কারাগারে, পাবেন ডিভিশন সুবিধা
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদক
দুর্নীতির মামলায় ১০ বছরের কারাদণ্ড পাওয়া আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য (এমপি) হাজী মো. সেলিমকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নেওয়া হয়েছে। কারাগারে তিনি পাবেন ডিভিশন সুবিধা। আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী, তাকে কারাগারে প্রথম শ্রেণির মর্যাদা প্রদান ও কারাগারের তত্ত্বাবধানে দেশের উন্নতমানের হাসপাতালে ‘বেটার ট্রিটমেন্ট’ দিতে বলা হয়েছে।

রোববার (২২ মে) সন্ধ্যা ৬টার দিকে কারাগারে পৌঁছে তাকে বহন করা পুলিশের গাড়িটি। বিষয়টি নিশ্চিত করে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার মাহবুবুল আলম বলেন, সাজা পরোয়ানা মূলে আসামি হাজী সেলিমকে কারাগারে নেওয়া হয়েছে।

জেলকোড অনুযায়ী ডিভিশন-১ দেওয়া কিংবা উন্নতমানের চিকিৎসার প্রয়োজনীয়তা থাকলে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেন আদালত। সে অনুযায়ীই হাজী সেলিমকে ডিভিশন-১ এ পাঠানো হয়েছে।

এর আগে, দুপুর ২টার দিকে তিন ছেলেকে নিয়ে হাজী সেলিম আদালত প্রাঙ্গণে আসেন। সেখানে আগে থেকে তার অনুসারীরা অপেক্ষা করছিলেন এবং নানা স্লোগান দিচ্ছিলেন। অনেকক্ষণ অপেক্ষার পর হাজী সেলিম প্রবেশ করেন আদালত ভবনে।

বিকেল ৩টা ১০ মিনিটের দিকে আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করেন হাজী সেলিম। ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৭ এর বিচারক শহিদুল ইসলাম জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

আদালত সূত্রে জানা যায়, সাজাপ্রাপ্ত আসামি হাজী মো. সেলিম হাইকোর্টের নির্দেশে আজ আত্মসমর্পণ করে জামিনের দরখাস্ত দাখিলপূর্বক আপিল দায়েরের শর্তে জামিনের আবেদন করেন। পাশাপাশি কারাগারে প্রথম শ্রেণির মর্যাদার জন্য এবং কারাগারের তত্ত্বাবধানে দেশের উন্নতমানের হাসপাতালে ‘বেটার ট্রিটমেন্ট’ আদেশের প্রার্থনা করেন।

আদালত জামিন বিষয়ে আসামিপক্ষের আইনজীবী ও দুদক পক্ষের আইনজীবীর বক্তব্য শোনেন। পরে আদালতের আদেশে বলা হয়, দাবি মতে দরখাস্তকারী আসামি একজন সংসদ সদস্য এবং ভালো চরিত্রের অধিকারী। তার সামাজিক মর্যাদা, আসামি যে অপরাধে সাজাপ্রাপ্ত হয়েছেন, তার ধরন ইত্যাদি বিবেচনায় তাকে জেলকোড অনুযায়ী ডিভিশন ১ দেওয়া কিংবা উন্নতমানের চিকিৎসা দেওয়ার প্রয়োজনীয়তা থাকলে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেওয়া হলো।

কলেজ ছাত্রীকে উত্যক্ত করার অভিযোগে দু’জন আটক
                                  

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি:
ঠাকুরগাঁওয়ে কলেজ ছাত্রীউত্যক্ত করার অভিযোগে দুই যুবককে আটক করেছে পুলিশ। রবিবার (২২মে) সকালে জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার শহীদ আকবর আলী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কলেজে এ ঘটনা ঘটে। আটককৃতরা হলেন, জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার পাড়িয়া ইউনিয়নের চাকদহ গ্রামের মফিজুল ইসলামের ছেলে রাজু হোসেন (২২) ও একই ইউনিয়নের বামুনিয়া গ্রামের খোরশেদ আলীর ছেলে জনি হাসান।

পুলিশ ও কলেজ কর্তৃপক্ষ জানায়, কলেজে আসার জন্য দুই শিক্ষার্থী যানবাহনের জন্য অপেক্ষা করছিল। এসময়  ব্যাটারি চালিত এক অটো রিক্সা চালক তাদের নিয়ে কলেজের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। চলন্ত অবস্থায় পাশে বসে থাকা রাজু নামে এক যুবক তাদের  শরীরের স্পর্শকাতর অঙ্গে হাত দেয়। ওই দুই শিক্ষার্থী কৌশলে ড্রাইভারসহ দুজনকে কলেজ কর্তৃপক্ষের কাছে নিয়ে আসে। কর্তৃপক্ষ তাৎক্ষণিকভাবে তাদের আটক করে পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ আসার আগ মুহুর্তে ঘটনা ছড়িয়ে পড়লে কলেজের সামনের সড়ক অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা।
 ভুক্তবোগীদের অভিযোগ ড্রাইভারের যোগসাজসেই এমন ঘটনা ঘটনো হয়েছে। অবিলম্বে তাদের গ্রেফতার করে শাস্তি প্রদান করতে হবে। পরবর্তীতে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের পর অভিযুক্তদের আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

এ বিষয়ে বালিয়াডাঙ্গী থানার ওসি খায়রুল আনাম ডন জানান, ঘটনার প্রেক্ষিতে দুজনকে আটক করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জামিন মঞ্জুর না হলে কারাগারে ডিভিশন নেবেন হাজী সেলিম
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদক

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের দায়ে সাজাপ্রাপ্ত মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত পুরান ঢাকার সংসদ সদস্য হাজী সেলিম রবিবার (২২ মে) আদালতে আত্মসমর্পণের আবেদন করেছেন। একই সঙ্গে উন্নত চিকিৎসা ও কারাগারে ডিভিশনের আবেদনও করেছেন তিনি। রবিবার (২২ মে) সকাল সাড়ে ১০টার পর ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৭ এর বিচারক শহিদুল ইসলামের আদালতে এ আবেদন করেন। আবেদন বিষয়ে শুনানি হবে দুপুর ২টায়। রবিবার (২২ মে) সংশ্লিষ্ট আদালতের পেশকার সাইদুল ইসলাম শাহীন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

হাজী সেলিমের আরেক আইনজীবী সাঈদ আহমেদ রাজা বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, আজ দুপুর ২টার দিকে হাজি সেলিম আত্মসমর্পণের জন্য আদালতে যাবেন। আদালতে আত্মসমর্পণ করার পর জামিন বাতিল হলে হাজি সেলিমকে কারাগারে যেতে হবে। সে বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে তিনি ডিভিশনের আবেদন করেছেন।

অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় গত ২৫ এপ্রিল হাজী সেলিমের ১০ বছরের সাজা বহাল রাখেন হাইকোর্ট। এরপর তাকে ৩০ দিনের মধ্যে আত্মসমর্পণ করার নির্দেশ দেওয়া হয়। সেই নির্দেশে হাজী সেলিম আজ বিচারিক আদালতে আত্মসমপর্ণ করতে যাচ্ছেন।

উল্লেখ্য, ২০০৭ সালের ২৪ অক্টোবর হাজী সেলিমের বিরুদ্ধে লালবাগ থানায় অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) মামলা করে। সে মামলায় ২০০৮ সালের ২৭ এপ্রিল তাকে ১৩ বছরের কারাদণ্ডাদেশ দেন বিচারিক আদালত। এরপর ২০০৯ সালের ২৫ অক্টোবর হাজী সেলিম বিচারিক আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করেন।

পরে ২০১১ সালের ২ জানুয়ারি হাইকোর্ট এক রায়ে হাজী সেলিমের সাজা বাতিল করেন। পরে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে দুদক। ওই আপিলের শুনানি শেষে ২০১৫ সালের ১২ জানুয়ারি রায় বাতিল করে পুনরায় হাইকোর্টকে হাজী সেলিমের আপিলের শুনানি করতে নির্দেশ দেন আপিল বিভাগ। ওই নির্দেশনার পরিপ্রেক্ষিতে মামলাটি শুনানির জন্য উদ্যোগী হয় দুদক।

ছেলের পিটুনিতে পিতা নিহত
                                  

আকরামুজ্জামান আরিফ, কুষ্টিয়া:
স্বামী-স্ত্রীর দ্বন্দ্বে জের ধরে কুষ্টিয়া শহরের চড় মিলপাড়া এলাকায় রমিজ (১৭) নামের নেশাগ্রস্থ  ছেলের লাঠির আঘাতে পিতা  বাবু (৫০) নামে একজন নিহত হয়েছে। শুক্রবার (২০ মে)  ভোর ৬ টার সময় চড় মিলপাড়ায় তার নিহতের নিজ বাড়িতে এই ঘটনা ঘটে। নিহত বাবু চড় মিলপাড়া এলাকার মৃত মকবুল হোসেনের ছেলে।

এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, দীর্ঘ কয়েকমাস ধরে নিহত বাবুর সাথে তার স্ত্রী জনতা খাতুন (৫০) ও ছেলে রমিজ (১৭) এর পারিবারিকভাবে কলোহ চলে আসছিলো। নিহত বাবু ও  ছেলে রমিজ উভয়ই নেশাগ্রস্থ বলে জানা গেছে। দীর্ঘ দিন ধরে চলে আসা পারিবারিক কলোহের জের ধরে শুক্রবার ভোরে নিহত বাবুর সাথে তার স্ত্রীর ঝগড়া লাগলে ছেলে রমিজ ক্ষিপ্ত হয়ে বাশের লাঠি দিয়ে নিজ পিতা বাবুর মাথায় আঘাত করে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে স্থানীয়রা আহত অবস্থায় বাবুকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ নিহতের স্ত্রী জনতা খাতুনকে আটক করেছে।
 
কুষ্টিয়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সাব্বিরুল আলম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান,পারিবারিক কলোহের জের ধরে ছেলের হাতে বাবা খুন হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোন মামলা হয়নি। ব্যবস্থা গ্রহনের প্রস্তুতি চলছে।

সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার কলেজছাত্রী
                                  

মোঃ রুবেল হোসেন, নওগাঁ:
নওগাঁর মান্দায় সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন এক কলেজছাত্রী। গত শুক্রবার রাত ৮টার দিকে উপজেলার নুরুল্লাবাদ ইউনিয়নের একটি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। তিনি একটি কলেজের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী। ঘটনায় মান্দা থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

স্থানীয়রা জানান, মেয়েটির বাবা ঢাকায় থেকে রিকশা ও মা একটি গার্মেন্টে চাকরি করেন। বাড়িতে ছোটবোনকে নিয়ে দাদীর সঙ্গে থেকে কলেজে লেখাপড়া করেন তিনি। গত শুক্রবার সকালে ছোটবোন বাড়ির অদুরে নানার বাড়িতে বেড়াতে যান। রাত ৮টার দিকে একটি টর্চলাইট নিয়ে ছোটবোনকে আনতে বাড়ি থেকে বের হয়ে দলগত ধর্ষণের শিকার হন তিনি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানান, পথে একটি আমবাগানে কয়েকজন বখাটে যুবক তাঁকে আটকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। মেয়েটি চিৎকার দিলে স্থানীয় লোকজন ঘটনাস্থল থেকে তাঁকে উদ্ধার করেন। এ সময় লোকজনের উপস্থিতি টের পেয়ে ধর্ষকরা পালিয়ে যায়।

বিষয়টি মোবাইলফোনে ঢাকায় অবস্থানরত বাবা-মাকে অবহিত করেন মেয়েটি। বুধবার সকালে তাঁর বাবা-মা ঢাকা থেকে বাড়ি ফিরেন। পরে মেয়েসহ আশপাশের লোকজনের কাছে ঘটনার বর্ণনা শুনে মেয়েকে নিয়ে মান্দা থানায় উপস্থিত হন।

মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহিনুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। একই সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তারে অভিযান শুরু করেছে পুলিশ।

বাগেরহাটে ভূয়া ডাক্তারকে লাখ টাকা জরিমানা
                                  

বাগেরহাট প্রতিনিধি :
বাগেরহাট জেলার  কচুয়া উপজেলা সদরে  প্রাথমিক চিকিৎসার প্রশিক্ষণ নিয়ে নিজেকে এমবিবিএস পাশ দাবী করায় এম, এম মনির নামের এক ভূয়া চিকিৎসককে এক লাখ টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে কচুয়া উপজেলা সদরের জিরো পয়েন্ট এলাকায় বড় সাইনর্বোড টানিয়ে ওই  চিকিৎসক চেম্বারে রোগী দেখছিলেন এমন সময় অভিযান চালিয়ে জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার রোহান সরকার এই দন্ডাদে দেন। এসময় ওই চিকিৎসকের চেম্বারটি সিলগালা করে দেয়া হয়। দন্ডপ্রাপ্ত এম, এম মনির বাগেরহা পৌর শহরের হরিণখানা এলাকার সোহরাব হোসেনের ছেলে।

বাগেরহাট জেলা সহকারী কমিশনার রোহান সরকার বলেন, প্রাথমিক চিকিৎসার একটি প্রশিক্ষণ নিয়েই তিনি নিজেকে এমবিবিএস পাশ দাবী করে মানুষকে চিকিৎসা সেবা দিয়ে আসছিলেন। তিনি সাইনবোর্ডে যে রেজিস্ট্রেশন নম্বরটি লিখেছেন সেটিও ভুয়া।  তার অপরাধ প্রমাণ হওয়ায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে একলাখ টাকা জরিমানা ও তার চেম্বারটি বন্ধ করে সিলগালা করে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া তিনি আর কখনও চিকিৎসা সেবা প্রদান করবেন না বলে মুচলেকা দিয়েছেন।

হত্যা মামলার ২৪ ঘন্টার মধ্যে চার্জশিট দিল সাটুরিয়া থানা পুলিশ
                                  

সাটুরিয়া থেকে আল মামুন:
মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ায় শ্রমিক আরিফ হত্যা মামলার ২৪ ঘন্টার মধ্যে আদালতে মামলার চার্জশিট প্রদান করেছে সাটুরিয়া থানা পুলিশ।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, গত ১৬ মে  সোমবার সাটুরিয়া উপজেলার গর্জনা গ্রামের ইউসুফ আলীর ধান ক্ষেতে কাজ করতে আসা শ্রমিক আরিফ হোসেন, হৃদয় শেখ, ও বাবুল শেখ, তিন জন।

প্রতিদিনের ন্যায় জমিতে ধান কাটা শুরু করে দুপুরে খাবারের আগে জমির পাশে মেশিন ঘরে বিশ্রামের জন্য গেলে সেখানে হটাৎ হৃদয় শেখ আরিফ হোসেনের গলায় ধারালো কাচি চালিয়ে নৃশংস ভাবে হত্যা করে। হত্যার পর পালানোর সময় স্থানীয় জনতার হাতে ধরা পড়ে পরে পুলিশে সোপর্দ করে।

পরবর্তীতে সাটুরিয়া থানা পুলিশ হৃদয় শেখের সাথে বাবুল শেখকে আটক করে থানা হাজতে নিয়ে আসে। বাবুল শেখ হত্যার সাথে জরিত না থাকায় তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

এ ব্যাপারে সাটুরিয়া থানা অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ আশরাফুল আলম জানান, ঘটনার দিন রাতে নিহতের ভাই মনোয়ার হোসেন বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। মামলার রুজু হওয়ার ২৪ ঘন্টার মধ্যে হৃদয়কে আসামী করে আদালতে চার্জশিট প্রদান করা হয়েছে। হত্যাকারী নিজে হত্যা দায় স্বীকার ও মামলার তথ্য উপাত্ত, মামলার স্বাক্ষী পাওয়ায় আদালতে  চার্জশীট দ্রুত প্রদান করা সম্ভব হয়েছে বলে তিনি জানান।

জামিন বাতিল সম্রাটের
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদক
দুর্নীতির মামলায় ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটের জামিন বাতিল করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে আগামী সাতদিনের মধ্যে তাকে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। আজ বুধবার (১৮ মে) এই নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।

এর আগে সোমবার (১৬ মে) বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজী মো. ইজহারুল হক আকন্দের হাইকোর্ট বেঞ্চে সম্রাটের জামিন বাতিলের আবেদন করে দুদক। দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান বলেন, অপরাধের গুরুত্ব বিবেচনায় আমরা জামিন বাতিল চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেছি।

এর আগে, সব মামলায় জামিন পাওয়ায় গত ১১ মে মুক্তি পান সম্রাট। দুদকের মামলায় তার তিন শর্তে ও ১০ হাজার টাকা মুচলেকায় ৯ জুন পর্যন্ত জামিন মঞ্জুর করেন আদালত। শর্তগুলো হলো- আদালতের অনুমতি ছাড়া দেশ ত্যাগ করতে পারবেন না সম্রাট, পাসপোর্ট জমা দিতে হবে এবং স্বাস্থ্যগত পরীক্ষার প্রতিবেদন আগামী ধার্য তারিখে জমা দিতে হবে। উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ১২ নভেম্বর ২ কোটি ৯৪ লাখ ৮০ হাজার ৮৭ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে সম্রাটের বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক।

কবজি জোড়া লাগানো হল পুলিশ কনস্টেবল জনি খানের
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদক
আসামির দায়ের কোপে হাতের কবজি বিচ্ছিন্ন হওয়া পুলিশ কনস্টেবল জনি খানের কবজি অস্ত্রোপচার করে জোড়া লাগানো হয়েছে। সোমবার (১৬ মে) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জনি খানের সঙ্গে থাকা লোহাগাড়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ভক্ত চন্দ দত্ত।

তিনি জানান, রোববার (১৫ মে) বিকেল ৫টায় ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে তার অস্ত্রোপচার শুরু হয়। শেষ হয় দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে। চিকিৎসকের বরাতে ভক্ত চন্দ দত্ত বলেন, ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে তার চিকিৎসা চলছে। জনি খান বর্তমানে ভালো আছেন। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গেও কথা বলেছেন। তিনি বলেন, চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, অস্ত্রোপচারটি সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সাতকানিয়া সার্কেল) মো. শিবলী নোমান বলেন, জনি খানের ওপর হামলার ঘটনায় লোহাগাড়া থানায় একটি মামলা হয়েছে। হামলার সঙ্গে জড়িত কবির আহম্মদের স্ত্রী রুবি বেগমকে বান্দরবান সীমান্ত এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। কবির আহম্মদকে গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে।

এর আগে রোববার সকালে চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলায় অভিযানে গিয়ে আসামির দায়ের কোপে হাতের কবজি বিচ্ছিন্ন হয় কনস্টেবল জনি খানের। একই ঘটনায় আরও এক কনস্টেবল আহত হন। ঘটনার পর পালিয়ে যান আসামি কবির আহম্মদ।

কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ করলেন পুলিশ কর্মকর্তা
                                  

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদক
খুলনায় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) পরিদর্শক মঞ্জুরুল আহসান মাসুদের বিরুদ্ধে এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে । রোববার (১৫ মে) সকালে এ ঘটনা ঘটে। পরে দুপুরে ভুক্তভোগী কলেজছাত্রীকে নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে পুলিশ। এতে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ধর্ষণের প্রাথমিক সত্যতা পেয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

ধর্ষণের শিকার কলেজছাত্রীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কলেজছাত্রী ওই মেয়ের বাড়ি খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলায়। তিনি ২০২১ সালে এইচএসসি পাশ করেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের ছবি সংক্রান্ত একটি সমস্যা নিয়ে ৫ দিন আগে পিবিআই ইন্সপেক্টর মাসুদের কাছে যান ওই ছাত্রী। তাদের মধ্যে এ ব্যাপারে কয়েকদিন ধরে যোগাযোগ চলছিল। আজ সকালে পুলিশ কর্মকর্তা মাসুদ ওই কলেজছাত্রীকে খুলনা নগরীর ছোট মির্জাপুর রোডের কাগজী হাউজের একটি অফিসে নিয়ে যান। সেখানে তাকে ধর্ষণ করেন মাসুদ।

এ ঘটনার পর ধর্ষণের শিকার মেয়েটি খুলনা সদর থানায় গিয়ে অভিযোগ করেন। পরে ওই মেয়েটিকে নিয়ে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের (কেএমপি) উপ-পুলিশ কমিশনার (সাউথ) সোনালী সেন, সহকারী কমিশনার (খুলনা জোন) ইয়াজিদ ইবনে আকবর ও খুলনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাসান আল মামুনের নেতৃত্বে পুলিশ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে যান।

এ সময় অফিসটি তালাবদ্ধ থাকায় পুলিশ কর্মকর্তারা তালা ভেঙে অফিসের কক্ষে প্রবেশ করেন। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ধর্ষণের প্রাথমিক সত্যতা পেয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের (কেএমপি) উপ-পুলিশ কমিশনার (সাউথ) সোনালী সেন বলেন, ফেসবুকে মেয়েটির ছবি শেয়ার সংক্রান্ত সমস্যা নিয়ে পিবিআই ইন্সপেক্টর মঞ্জুরুল আহসান মাসুদের কাছে আসেন। বিষয়টি মাসুদ দেখছিলেন। আজ সকালে নগরীর ডাকবাংলা এলাকা থেকে মেয়েটি মাসুদের মোটরসাইকেলে করেই ওই প্রতিষ্ঠানে যায়। পরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে মেয়েটি অভিযোগ করেছে।

ঘটনা জানার পরপরই আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। অফিস তালাবদ্ধ থাকায় পরে তালা ভেঙে প্রবেশ করা হয়। সেখানে কিছু আলামত পাওয়া গেছে। ঘটনার পর থেকে মাসুদের মোবাইল নম্বর বন্ধ এবং তিনি পলাতক রয়েছেন। মেয়েটির ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

সাঁথিয়ায় মৃত গরুর মাংস বিক্রির দায়ে কসাই’র কারাদণ্ড
                                  

সাঁথিয়া (পাবনা)প্রতিনিধি:
পাবনার সাঁথিয়ায় মৃত গরু জবাই করে মাংস বিক্রি করার অপরাধে বলাই হোসেন নামে এক কসাইকে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। সে সাঁথিয়া পৌরসভাধীন পিপুলিয়া গ্রামের মৃত মোজার ছেলে।

জানা গেছে, শনিবার রাতে সাঁথিয়াতে মরা গরু জবাই করার সময় হাতেনাতে বলাই কসাইকে গ্রেফতার করে সাঁথিয়া থানা পুলিশ। মৃত গরু জবাই করে সেই মাংস বিক্রি করার অপরাধে রোববার দুপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম জামাল আহমেদ বলাই কসাইকে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেন। এ সময় ফ্রিজে থাকা ৮০ কেজি মরা গরুর মাংস উদ্ধার করে সেগুলো ধ্বংস করে দেওয়া হয়। কসাই বলাই দীর্ঘদিন যাবৎ মরা গরুর গোস্ত বিক্রি করে আসছিল। সে এসব মরা গরুর মাংস সাঁথিয়াসহ ঢাকাতেও পাঠাতো বলে জানা যায়।

সাঁথিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম জামাল আহমেদ জানান, মৃত গরু জবাই করার সময় তাকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তার ফ্রিজ থেকে পাওয়া ৮০ কেজি মরা গরুর গোস্ত জব্দ করা হয়।

শিশু ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে ২ শিশু আটক
                                  

 জেলা প্রতিনিধি, সাতক্ষীরা:

সাতক্ষীরায় দু’শিশুর বিরুদ্ধে আট বছরের এক কন্যা শিশুকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। শনিবার বিকালে সদর উপজেলার বাঁশদহা ইউনিয়নের হাওয়ালখালি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। রাতে এ অভিযোগে আটক করা হয়েছে ১২ ও ১১ বছরের দুই শিশুসহ তাদের এক জনের মাকে।

কন্যা শিশুটির বাবা হাওয়ালখালি গ্রামের এক দিন মজুরের দায়েরকৃত মামলার বরাত দিয়ে সাতক্ষীরা সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) বিশ^জিত অধিকারী জানান, শনিবার বিকালে তাদের বাড়ির পাশেই ধর্ষণচেষ্টার ঘটনা ঘটে। অভিযুক্ত শিশু আকিব (১২) ও তার চাচাতো ভাই রফিকুল (১১) এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে জানান তিনি।

পুলিশ মেয়েটির বাবার দায়ের করা মামলা অনুযায়ী ওই দুই শিশুকে এবং আকিবের মা রওশন আরাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন।

তবে আকিবের বাবা মোঃ টুটুল জানান, তাদের সাথে মেয়েটির পরিবারের জমিজমাসহ নানা বিষয়ে ঝগড়াঝাটি লেগেই আছে। ষড়যন্ত্রমূলকভাবে তার ছেলে-ভাতিজা ও স্ত্রীকে অভিযুক্ত করে থানায় মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে হাওয়ালখালি গ্রামের ইউপি সদস্য রিপন জানান, একটি ধর্ষণচেষ্টার ঘটনা ঘটেছে বলে তিনিও শুনেছেন।
 
পুলিশ পরিদর্শক বিশ^জিত অধিকারী আরো জানানন, ধর্ষণচেষ্টা শিকার মেয়েটির মেডিকেল পরীক্ষা করানো হয়নি। তবে অভিযুক্ত দু’ শিশুকে সাতক্ষীরার শিশু আদালতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং রওশান আরাকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।


   Page 1 of 157
     আইন - অপরাধ
স্ত্রীর বড় বোনকে ধর্ষণ করে ভিডিও ধারণ: ছোট বোনের জামাই গ্রেফতার
.............................................................................................
১০দিনেও উদ্ধার হয়নি স্কুল ছাত্রী রেশমা
.............................................................................................
আত্মসমর্পণের পর কারাগারে প্রদীপের স্ত্রী চুমকি
.............................................................................................
এখানেই রাত কাটিয়েছেন নর্থ সাউথের চার ট্রাস্টি
.............................................................................................
হাজী সেলিম কারাগারে, পাবেন ডিভিশন সুবিধা
.............................................................................................
কলেজ ছাত্রীকে উত্যক্ত করার অভিযোগে দু’জন আটক
.............................................................................................
জামিন মঞ্জুর না হলে কারাগারে ডিভিশন নেবেন হাজী সেলিম
.............................................................................................
ছেলের পিটুনিতে পিতা নিহত
.............................................................................................
সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার কলেজছাত্রী
.............................................................................................
বাগেরহাটে ভূয়া ডাক্তারকে লাখ টাকা জরিমানা
.............................................................................................
হত্যা মামলার ২৪ ঘন্টার মধ্যে চার্জশিট দিল সাটুরিয়া থানা পুলিশ
.............................................................................................
জামিন বাতিল সম্রাটের
.............................................................................................
কবজি জোড়া লাগানো হল পুলিশ কনস্টেবল জনি খানের
.............................................................................................
কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ করলেন পুলিশ কর্মকর্তা
.............................................................................................
সাঁথিয়ায় মৃত গরুর মাংস বিক্রির দায়ে কসাই’র কারাদণ্ড
.............................................................................................
শিশু ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে ২ শিশু আটক
.............................................................................................
অনৈতিক সম্পর্ক: গ্রাম্য সালিশে জরিমানা আদায়
.............................................................................................
দুর্নীতির অভিযোগে ২ শিক্ষককে দুদকে তলব
.............................................................................................
সাতক্ষীরায় খাল দখলের স্থাপনা নির্মাণ বন্ধ করে দিল প্রশাসন
.............................................................................................
৫০ টাকা দরে ৪৩টি কম্পিউটার বিক্রি, চার কর্মকর্তাকে শোকজ
.............................................................................................
জমি রেজিষ্ট্রি করে না দেয়ায় মাকে খুন
.............................................................................................
মানিকগঞ্জে তেলের ডিলারকে এক লক্ষ টাকা জরিমানা
.............................................................................................
মানিকগঞ্জে তেলের ডিলারকে এক লক্ষ টাকা জরিমানা
.............................................................................................
যুব জোট নেতার হাত-পায়ের রগ কেটে হত্যা!
.............................................................................................
আদালতের রায়ে সাজা হওয়ায় বাদীর উপর হামলা, আহত ৩
.............................................................................................
প্রাপ্তবয়স্ক দেখিয়ে ৩ শিশুর নামে হত্যাচেষ্টার মামলা
.............................................................................................
নারিকেল চুরির অভিযোগে ক্রিকেট ব্যাট দিয়ে পিটিয়ে হত্যা
.............................................................................................
৫ টাকার টিকিট ১০ টাকায় বিক্রি করায় জেল-জরিমানা
.............................................................................................
অস্ত্রসহ ফেসবুকে ভাইরাল ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার
.............................................................................................
সাঁথিয়ায় স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ
.............................................................................................
রেলমন্ত্রীর আত্মীয় পরিচয়ে বিনাটিকিটে ভ্রমণকারীকে জরিমানা; টিটিই বরখাস্ত!
.............................................................................................
কুষ্টিয়ায় চার খুনের ঘটনায় উভয়পক্ষের মামলা দায়ের
.............................................................................................
পূর্ব শত্রুতার জেরে কুমিল্লায় ঈদগাহ মাঠে গুলি, আহত ১
.............................................................................................
চাটখিলে মুঠোফোনে প্রতারক চক্রের ফাঁদে শিক্ষার্থীরা
.............................................................................................
ধামরাইয়ে ইভটিজিংয়ের শিকার নারী স্বাস্থ্য কর্মকর্তা!
.............................................................................................
চাঁদাবাজ-ছিনতাইকারী চক্রের ৪১ সদস্য গ্রেফতার
.............................................................................................
ভিজিএফের কার্ড চাওয়ায় বৃদ্ধাকে পেটাল ইউপি সদস্য
.............................................................................................
সারাদিন দাঁড়িয়ে থেকেও চাল পাননি বৃদ্ধা; মেঝেতে পড়ে থাকা চাল কুড়ান
.............................................................................................
বাংলাবাজার-শিমুলিয়া রুটে ২৪ ঘণ্টা চলবে ফেরি
.............................................................................................
অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল শহীদ উদ্দিন খান ও তার স্ত্রী মেয়ের নামে মামলা
.............................................................................................
নিউ মার্কেটে অ্যাম্বুলেন্স ভাঙচুর মামলায় আসামী ২০০
.............................................................................................
স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টা; থানায় মামলা
.............................................................................................
ঝিনাইদহের মৌসুমী শপিং মলে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা
.............................................................................................
নিউমার্কেট কান্ড: ব্যবসায়ী-শিক্ষার্থীসহ দুই মামলায় আসামি ১২০০
.............................................................................................
পাবজি, ফ্রি ফায়ার নিষিদ্ধের আদেশ হাইকোর্টে বহাল
.............................................................................................
হিজাব বিতর্কে জেলহাজতে প্রধান শিক্ষক ধরণী কান্ত
.............................................................................................
আশুলিয়ায় শিশুকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে আটক ১
.............................................................................................
আসামি ধরতে গিয়ে অভিযোগকারীকেই মারধর, ৩ পুলিশ বরখাস্ত
.............................................................................................
রমনা বটমূলে বোমা হামলার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি মুফতি শফিকুল ইসলাম গ্রেফতার
.............................................................................................
রোহিঙ্গা যুবতীকে ধর্ষণ; গ্রেফতার ২
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া
যুগ্ম সম্পাদক: প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Dynamic Solution IT