রবিবার, ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   রাজনীতি -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
বিএনপি সন্ত্রাসী সংগঠন : শেখ পরশ

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:

বিএনপি যে সন্ত্রাসী সংগঠন, এর ভুরি ভুরি প্রমাণ আছে বলে মন্তব্য করেন যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস্ পরশ।  দেশব্যাপী বিএনপি জামাতের নৈরাজ্য ও তাণ্ডবের বিরুদ্ধে ঢাকা মহানগর আওয়ামী যুবলীগ উত্তর আয়োজিত শান্তি সমাবেশে তিনি একথা বলেন।

রাজধানীর ফার্মগেইট যুবলীগ চত্ত্বরে আয়োজিত সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জাকির হোসেন বাবুলের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস্ পরশ আরো বলেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়ার নাম এসেছিল মোস্ট ওয়ান্টেড তালিকায়। আন্তর্জাতিক মানি লন্ডারিং মামলাতেও তিনি দুর্নীতির বরপুত্র এবং সারা বিশ্বে কুখ্যাত। এছাড়া ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলা, একুশে আগস্টের গ্রেনেড হামলা ও দুর্নীতির কারণে দেশ-বিদেশে তার ব্যাপক সুনাম আছে। এই কুখ্যাত সন্ত্রাসী এবং দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন রাজনৈতিক দল এখন আমাদেরকে সন্ত্রাসী হিসাবে উপস্থাপন করার রাজনৈতিক কৌশল হাতে নিয়েছে। তিনি বলেন বিএনপির নেতৃবৃন্দদের বলতে চাই জনগণকে আপনারা ভিক্টিম বানানোর স্পর্ধা দেখাবেন না। জনগণের অধিকার, অর্থাৎ জনগণের জান-মালের নিরাপত্তায় যদি আপনারা ব্যাঘাত ঘটান তার দাঁতভাঙ্গা জবাব আপনারা রাজপথেই পাবেন। স্বাধীনতার পর এই প্রথম এ দেশের মেহনতি মানুষ তাদের মৌলিক অধিকারগুলো উপভোগ করছে। অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, স্বাস্থ্য এবং শিক্ষা নিশ্চিত হয়েছে। এই প্রথম খাদ্যে আমরা স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছি। বিএনপির বাংলাদেশের এই কৃতিত্ব পছন্দ হচ্ছে না। প্রায় ২ লক্ষ গৃহহীনদের বসবাসের জন্য ঘর দেয়া হয়েছে, যেটা কোন উন্নত রাষ্ট্রও দিতে পারে না। বস্তিবাসীদেরকে বহুতল বিশিষ্ট ফ্ল্যাটে পুনর্বাসন করা হচ্ছে। করোনার মোকাবিলায় পৃথিবীর প্রথম ১০-১২ টি  দেশের মধ্যে বাংলাদেশের নাম। বিনা মূল্যে মোট ৩০ কোটি টিকা প্রদান করা হয়েছে। সারা দেশে প্রায় পনের হাজার কমিউনিটি ক্লিনিক হয়েছে। শিক্ষায় বাংলাদেশের অভূতপূর্ব সাফল্য, বিশেষ করে সাক্ষরতা বৃদ্ধিতে বাংলাদেশ গোটা পৃথিবীতে এক অবাক নিদর্শন।

যুবলীগ চেয়ারম্যান বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের নেতা কর্মীরা আপনাদের মত আদর্শহীন রাজনীতি করে না, আমাদের নেতা-কর্মীরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা লালন করে। আপনাদের মত পাকিস্তানের তাবেদারি রাজনীতি আমরা করি না। তাই আপনারা বলতে পারেন, ‘এই বাংলাদেশ থেকে পাকিস্তান ভাল ছিল’। আপনাদের লজ্জা নাই। তাই আপনারা এমন কথা বলতে পারেন। আমাদের পুলিশ বাহিনীর উপর যদি আপনারা চড়াও হন, তাহলে কিন্তু এদেশের জনগণ সেটা মেনে  নেবে না। যেই পুলিশ বাহিনীকে আপনারা ধ্বংস করে দিয়েছিলেন। যেই দেশকে আপনারা জঙ্গি রাষ্ট্রে পরিণত করেছিলেন। এই পুলিশ বাহিনীর কৃতিত্বে সেই জঙ্গিবাদ আজ প্রায় নির্মূল এবং নির্বাসনে। সুতরাং আপনাদের সাবধান করে দিচ্ছি, আমাদের পুলিশ বাহিনীর উপর চড়াও হওয়ার চেষ্টা করবেন না। আজকে অনেকে মানবাধিকারের কথা বলে। বাংলাদেশের মানুষ জানে কারা এদেশে মানবাধিকার লংঘন করেছে? কারা তত্ত্বাবধায়ক সরকারকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে ? তাই আগামী নির্বাচন বর্তমান নির্বাচন কমিশনের তত্ত্বাবধানে হবে। কেউ আসুক আর না আসুক নির্বাচন শেখ হাসিনার অধীনেই হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল বলেন, বিএনপি এটি নিকৃষ্ট সংগঠন। বিএনপি একটি মানবাধিকার লঙ্ঘনকারী সংগঠন। জনবিচ্ছিন্ন এই সংগঠনটি জনগণের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে চায়। তিনি আরও বলেন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা খুনি জিয়াউর রহমান এদেশের ছাত্র সমাজকে ধ্বংস করার জন্য তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের হাতে টাকা আর অস্ত্র তুলে দিয়েছিলেন। এটাই হচ্ছে বিএনপির আসল চেহারা। তাই বলতে চাই, আন্দোলনের নামে বিএনপি-জামাত যদি কোথাও জনগণের জানমালের ক্ষতি করার চেষ্টা করে, অগ্নি-সন্ত্রাস করে তাহলে তারদেরকে রাজপথে কঠোরভাবে প্রতিহত করা হবে।

ঢাকা মহানগর আওয়ামী যুবলীগ উত্তর আয়োজিত শান্তি সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাড. মামুনুর রশিদ, ডা. খালেদ শওকত আলী, মোঃ রফিকুল ইসলাম, হাবিবুর রহমান পবন, মো. নবী নেওয়াজ, এ কে এম আহসানুল হক চৌধুরী ডিউক এমপি, ব্যারিষ্টার সেলিম আলতাফ জর্জ এমপি, ইঞ্জিনিয়ার মৃনাল কান্তি  জোদ্দার, মোঃ আনোয়ার হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. হেলাল উদ্দিন, মোঃ সাইফুর রহমান সোহাগ, আবু মুনির মোঃ শহিদুল হক রাসেল, মশিউর রহমান চপল, প্রচার সম্পাদক জয়দেব নন্দী, দপ্তর সম্পাদক মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সম্পাদক মোঃ শামছুল আলম অনিক, সাংস্কৃতিক সম্পাদক বিপ্লব মুস্তাফিজ, উপ-তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সম্পাদক এন আই আহমেদ সেকত, উপ-তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক শেখ মোহাম্মদ মিসির আলি, উপ-পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক সামসুল ইসলাম পাটোয়ারী, উপ-মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মোঃ গোলাম কিবরিয়া শামীম, ঢাকা মহানগর যুবলীগ উত্তর এর সহ-সভাপতি মো. জলিলুর রহমান, মজিবর রহমান বাবুল, আকতারুজ্জামান আকতার, সাব্বির আলম লিটু, যুগ্ম সম্পাদক তাজবিরুল হক অনু, সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর রহমান, সিবলী সাদিক, শাহাদাত হোসেন সেলিম, দপ্তর সম্পাদক এ এইচ এম কামরুজ্জামান, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক ফরহাদ আমির, উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, উপ-শিল্প ও বানিজ্য সম্পাদক তারেক হোসেন বাদল, উপ-মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক জালাল উদ্দিন, সহ-সম্পাদক মিজানুর রহমান মুকুল, সদস্য রফিকুল ইসলাম স্বপন, এম এইচ খান মিরন, এনামুল হক, খোকন মাহমুদ, শেখ আল আমিনসহ বিভিন্ন থানার আহবায়ক ও যুগ্ম আহবায়ক এবং ওয়ার্ডের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকবৃন্দ। 

বিএনপি সন্ত্রাসী সংগঠন : শেখ পরশ
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:

বিএনপি যে সন্ত্রাসী সংগঠন, এর ভুরি ভুরি প্রমাণ আছে বলে মন্তব্য করেন যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস্ পরশ।  দেশব্যাপী বিএনপি জামাতের নৈরাজ্য ও তাণ্ডবের বিরুদ্ধে ঢাকা মহানগর আওয়ামী যুবলীগ উত্তর আয়োজিত শান্তি সমাবেশে তিনি একথা বলেন।

রাজধানীর ফার্মগেইট যুবলীগ চত্ত্বরে আয়োজিত সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জাকির হোসেন বাবুলের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস্ পরশ আরো বলেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়ার নাম এসেছিল মোস্ট ওয়ান্টেড তালিকায়। আন্তর্জাতিক মানি লন্ডারিং মামলাতেও তিনি দুর্নীতির বরপুত্র এবং সারা বিশ্বে কুখ্যাত। এছাড়া ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলা, একুশে আগস্টের গ্রেনেড হামলা ও দুর্নীতির কারণে দেশ-বিদেশে তার ব্যাপক সুনাম আছে। এই কুখ্যাত সন্ত্রাসী এবং দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন রাজনৈতিক দল এখন আমাদেরকে সন্ত্রাসী হিসাবে উপস্থাপন করার রাজনৈতিক কৌশল হাতে নিয়েছে। তিনি বলেন বিএনপির নেতৃবৃন্দদের বলতে চাই জনগণকে আপনারা ভিক্টিম বানানোর স্পর্ধা দেখাবেন না। জনগণের অধিকার, অর্থাৎ জনগণের জান-মালের নিরাপত্তায় যদি আপনারা ব্যাঘাত ঘটান তার দাঁতভাঙ্গা জবাব আপনারা রাজপথেই পাবেন। স্বাধীনতার পর এই প্রথম এ দেশের মেহনতি মানুষ তাদের মৌলিক অধিকারগুলো উপভোগ করছে। অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, স্বাস্থ্য এবং শিক্ষা নিশ্চিত হয়েছে। এই প্রথম খাদ্যে আমরা স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছি। বিএনপির বাংলাদেশের এই কৃতিত্ব পছন্দ হচ্ছে না। প্রায় ২ লক্ষ গৃহহীনদের বসবাসের জন্য ঘর দেয়া হয়েছে, যেটা কোন উন্নত রাষ্ট্রও দিতে পারে না। বস্তিবাসীদেরকে বহুতল বিশিষ্ট ফ্ল্যাটে পুনর্বাসন করা হচ্ছে। করোনার মোকাবিলায় পৃথিবীর প্রথম ১০-১২ টি  দেশের মধ্যে বাংলাদেশের নাম। বিনা মূল্যে মোট ৩০ কোটি টিকা প্রদান করা হয়েছে। সারা দেশে প্রায় পনের হাজার কমিউনিটি ক্লিনিক হয়েছে। শিক্ষায় বাংলাদেশের অভূতপূর্ব সাফল্য, বিশেষ করে সাক্ষরতা বৃদ্ধিতে বাংলাদেশ গোটা পৃথিবীতে এক অবাক নিদর্শন।

যুবলীগ চেয়ারম্যান বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের নেতা কর্মীরা আপনাদের মত আদর্শহীন রাজনীতি করে না, আমাদের নেতা-কর্মীরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা লালন করে। আপনাদের মত পাকিস্তানের তাবেদারি রাজনীতি আমরা করি না। তাই আপনারা বলতে পারেন, ‘এই বাংলাদেশ থেকে পাকিস্তান ভাল ছিল’। আপনাদের লজ্জা নাই। তাই আপনারা এমন কথা বলতে পারেন। আমাদের পুলিশ বাহিনীর উপর যদি আপনারা চড়াও হন, তাহলে কিন্তু এদেশের জনগণ সেটা মেনে  নেবে না। যেই পুলিশ বাহিনীকে আপনারা ধ্বংস করে দিয়েছিলেন। যেই দেশকে আপনারা জঙ্গি রাষ্ট্রে পরিণত করেছিলেন। এই পুলিশ বাহিনীর কৃতিত্বে সেই জঙ্গিবাদ আজ প্রায় নির্মূল এবং নির্বাসনে। সুতরাং আপনাদের সাবধান করে দিচ্ছি, আমাদের পুলিশ বাহিনীর উপর চড়াও হওয়ার চেষ্টা করবেন না। আজকে অনেকে মানবাধিকারের কথা বলে। বাংলাদেশের মানুষ জানে কারা এদেশে মানবাধিকার লংঘন করেছে? কারা তত্ত্বাবধায়ক সরকারকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে ? তাই আগামী নির্বাচন বর্তমান নির্বাচন কমিশনের তত্ত্বাবধানে হবে। কেউ আসুক আর না আসুক নির্বাচন শেখ হাসিনার অধীনেই হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল বলেন, বিএনপি এটি নিকৃষ্ট সংগঠন। বিএনপি একটি মানবাধিকার লঙ্ঘনকারী সংগঠন। জনবিচ্ছিন্ন এই সংগঠনটি জনগণের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে চায়। তিনি আরও বলেন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা খুনি জিয়াউর রহমান এদেশের ছাত্র সমাজকে ধ্বংস করার জন্য তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের হাতে টাকা আর অস্ত্র তুলে দিয়েছিলেন। এটাই হচ্ছে বিএনপির আসল চেহারা। তাই বলতে চাই, আন্দোলনের নামে বিএনপি-জামাত যদি কোথাও জনগণের জানমালের ক্ষতি করার চেষ্টা করে, অগ্নি-সন্ত্রাস করে তাহলে তারদেরকে রাজপথে কঠোরভাবে প্রতিহত করা হবে।

ঢাকা মহানগর আওয়ামী যুবলীগ উত্তর আয়োজিত শান্তি সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাড. মামুনুর রশিদ, ডা. খালেদ শওকত আলী, মোঃ রফিকুল ইসলাম, হাবিবুর রহমান পবন, মো. নবী নেওয়াজ, এ কে এম আহসানুল হক চৌধুরী ডিউক এমপি, ব্যারিষ্টার সেলিম আলতাফ জর্জ এমপি, ইঞ্জিনিয়ার মৃনাল কান্তি  জোদ্দার, মোঃ আনোয়ার হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. হেলাল উদ্দিন, মোঃ সাইফুর রহমান সোহাগ, আবু মুনির মোঃ শহিদুল হক রাসেল, মশিউর রহমান চপল, প্রচার সম্পাদক জয়দেব নন্দী, দপ্তর সম্পাদক মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সম্পাদক মোঃ শামছুল আলম অনিক, সাংস্কৃতিক সম্পাদক বিপ্লব মুস্তাফিজ, উপ-তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সম্পাদক এন আই আহমেদ সেকত, উপ-তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক শেখ মোহাম্মদ মিসির আলি, উপ-পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক সামসুল ইসলাম পাটোয়ারী, উপ-মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মোঃ গোলাম কিবরিয়া শামীম, ঢাকা মহানগর যুবলীগ উত্তর এর সহ-সভাপতি মো. জলিলুর রহমান, মজিবর রহমান বাবুল, আকতারুজ্জামান আকতার, সাব্বির আলম লিটু, যুগ্ম সম্পাদক তাজবিরুল হক অনু, সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর রহমান, সিবলী সাদিক, শাহাদাত হোসেন সেলিম, দপ্তর সম্পাদক এ এইচ এম কামরুজ্জামান, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক ফরহাদ আমির, উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, উপ-শিল্প ও বানিজ্য সম্পাদক তারেক হোসেন বাদল, উপ-মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক জালাল উদ্দিন, সহ-সম্পাদক মিজানুর রহমান মুকুল, সদস্য রফিকুল ইসলাম স্বপন, এম এইচ খান মিরন, এনামুল হক, খোকন মাহমুদ, শেখ আল আমিনসহ বিভিন্ন থানার আহবায়ক ও যুগ্ম আহবায়ক এবং ওয়ার্ডের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকবৃন্দ। 

১০ বিভাগীয় শহরে বিএনপির সমাবেশ আজ
                                  

স্বাধীন বাংলা রিপোর্ট : সরকারবিরোধী যুগপৎ আন্দোলনের পঞ্চম ধাপের কর্মসূচি নিয়ে একযোগে ১০ বিভাগীয় শহরে মাঠে নামছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি। রাজধানীতে বিএনপির পাশাপাশি আন্দোলনে থাকা অন্য দলগুলোও কর্মসূচি পালন করবে।

দুপুর ২টায় নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে হবে ঢাকা বিভাগীয় সমাবেশ। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এ কর্মসূচি ঘিরে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে দলটি।

তবে একইদিনে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে খুলনা, রংপুর, সিলেট, ঢাকা দক্ষিণসহ একাধিক জায়গায় পাল্টা কর্মসূচির ডাক দেয়ায় হয়েছে। এতে শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

ঢাকার মতোই বিএনপির সব বিভাগীয় সমাবেশ শুরু হবে দুপুর ২টায়। কুমিল্লা টাউন হল ময়দানের সমাবেশে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, রাজশাহী সোনামসজিদ মোড়ে স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, খুলনা সিটি করপোরেশনের সামনে সোসাইটি মোড়ে স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, বরিশাল জিলা স্কুল মাঠে স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি অফিসের সামনে স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, ময়মনসিংহ পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট মাঠে স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সিলেট রেজিস্টারি মাঠে স্থায়ী কমিটির সদস্য সেলিমা রহমান, ফরিদপুরের কমলপুর হাই স্কুল মাঠে ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু ও রংপুর মহানগর বিএনপি অফিসের সামনে সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেবেন ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান।

এদিকে বিরোধী জোটগুলোর নেতারা জানিয়েছেন, সাতদলীয় জোট ‘গণতন্ত্র মঞ্চ’ বেলা সাড়ে ১১টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সমাবেশ করবে। পরে তারা মিছিলও বের করবে।

এছাড়া ‘১২-দলীয় জোট’ বেলা ১১টায় বিজয়নগর পানি ট্যাংকের পাশে, গণতান্ত্রিক বাম ঐক্য জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনের সড়কে, একই সময়ে ‘জাতীয়তাবাদী সমমনা জোট’ পুরানা পল্টনে সমাবেশ করবে।

বেলা আড়াইটায় এফডিসি-সংলগ্ন দলীয় কার্যালয়ের সামনে এলডিপি এবং বিকেল ৪টায় মতিঝিলের নটরডেম কলেজের বিপরীত পাশে গণফোরাম ও পিপলস পার্টি সমাবেশ করবে।

অল্পের জন্য হেরে গেলেন হিরো আলম
                                  

স্বাধীন বাংলা অনলাইন:

অদম্য হিরো আলম এবার হেরে গেলেন। বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনের উপ-নির্বাচনে ১৪ দলের শরিক জাসদের একেএম রেজাউল করিম তানসেন এর কাছে অল্পের জন্য হেরে যান স্বতন্ত্র প্রার্থী আশরাফুল ইসলাম আলম ওরফে হিরো আলম।

উপ-নির্বাচনে একেএম রেজাউল করিম তানসেন (মশাল) বেসরকারিভাবে এমপি নির্বাচিত হয়েছেন। আর মাত্র ৮৩৪ ভোটে হেরে গেছেন আলোচিত স্বতন্ত্র প্রার্থী ইউটিউবার হিরো আলম।

বুধবার দিনভর ইভিএমে ভোটগ্রহণ শেষে রাত সাড়ে ৯টায় রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক সাইফুল ইসলাম বগুড়া-৪ আসনের ফলাফল ঘোষণা করেন।

এখানে তানসেন পেয়েছেন ২০ হাজার ৪০৫ ভোট। তার নিকটতম স্বতন্ত্র প্রার্থী আলোচিত ইউটিউবার আশরাফুল ইসলাম আলম ওরফে হিরো আলম পেয়েছেন ১৯ হাজার ৫৭১ ভোট। এ আসনে ভোট সংগ্রহের হার ২৩.৯২ শতাংশ।


ছাত্রদলের নেতাদের ওপর পদবঞ্চিতদের হামলা, আহত ৮
                                  

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি:
কমিটিতে স্থান না পেয়ে ছাত্রদলের পদবঞ্চিত সংক্ষুব্ধ নেতাদের হামলায় পদধারীরা আহত হয়েছে। এ হামলায় অন্তত ৮ জন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জে। বুধবার সকালের এ ঘটনার পর পুরো রূপগঞ্জে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

জানা গেছে, সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সংক্ষিপ্ত কমিটি ঘোষণা করা হয়। কমিটিতে নাহিদ হাসান ভূঁইয়া নাহিদকে সভাপতি ও জুবায়ের রহমান জিকুকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করে ৯ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করা হয়। আর এতেই বিপত্তি বাধে। পদবঞ্চিত নেতারা অভিযোগ করেন, দুর্নীতির মাধ্যমে এ কমিটি এসেছে।

কমিটি ঘোষণার পর থেকেই জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা কাজী মনিরুজ্জামান মনির সমর্থিত ছাত্রদল নেতা মাসুদুর রহমান মাসুদসহ তাদের অনুসারীরা ক্ষুব্ধ হন। এ কমিটি গঠনের প্রতিবাদে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন স্থানে ছাত্রদল নেতা মাসুদুর রহমান মাসুদের নেতৃত্বে পদবঞ্চিতরা বিক্ষোভও করেছেন।

বুধবার নারায়ণগঞ্জের চাষাঢ়ায় ছাত্রদলের নতুন কমিটির নেতাদের পরিচিতি সভা হওয়ার কথা। সেই লক্ষ্যে রূপগঞ্জ উপজেলার ভুলতা-গোলাকান্দাইল এলাকার ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে অবস্থান নিয়ে বাসে উঠতে শুরু করেন পদধারীদের অনুসারীরা।

বেলা ১১টার দিকে পদবঞ্চিত মাসুদুর রহমান মাসুদের নেতৃত্বে পদবঞ্চিত নেতাকর্মী ও তাদের অনুসারীরা লাঠিসোটা নিয়ে পদধারী ও তাদের অনুসারীদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়।

হামলায় আবু হোসেন, নিরা দাস, মোহাম্মদ শুভ, ইমরান হোসেনসহ অন্তত আটজন আহত হয়েছে বলে জানা গেছে। আহতদের বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সভাপতি নাহিদ হাসান ভূঁইয়া নাহিদ বলেন, সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে আমার লোকজনের ওপর হামলা চালিয়ে আহত করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় কমিটির নেতাদের অপমান করা হয়েছে। এর উপযুক্ত বিচার না হলে আমরা ছাড় দেব না।

হামলার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে ছাত্রদলের পদবঞ্চিত নেতা মাসুদুর রহমান মাসুদ বলেন, বিএনপির দুঃসময়ে আমরা হাল ধরেছি। রাজপথে বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সভা অব্যাহত রেখেছি। বিভিন্ন সময়ে আমরা মামলা হামলার শিকার হয়েছি। পুরো মাস মিথ্যা মামলায় নারায়ণগঞ্জ আদালতে দাঁড়াতে হচ্ছে। আওয়ামী লীগের সঙ্গে আঁতাত করে চলছে যারা তাদের পদে আনা হয়েছে।


নিজ কেন্দ্রে ভোট দিলেন আলোচিত প্রার্থী উকিল আব্দুস সাত্তার ভূইয়া
                                  

মহসিন পারভেজ, ক্রাইম রিপোর্টার:

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ) আসনের উপ-নির্বাচনের আলোচিত প্রার্থী বিএনপি থেকে পদত্যাগী উকিল আবদুসসাত্তার ভূইয়া সকাল ৮টা ৩৫ মিনিটে তার নিজ গ্রাম সরাইলের অরুয়াইলের পরমানন্দপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোটকেন্দ্রে ভোট দিয়েছেন।

এসময় তার সমর্থকেরা তার সাথে ছিলেন। নির্বাচনে মোট ৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু আসিফ আহমেদ এখনো নিখোঁজ রয়েছেন।

তবে আলোচিত প্রার্থী জাতীয় সংসদ ও বিএনপি থেকে সদ্য পদত্যাগী উকিল আবদুস সাত্তার ভূইয়ার নির্বাচনের প্রচারণায় আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা অংশ নিতে দেখা গেছে।



দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করেছেন শেখ হাসিনা: প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:

সংবিধানের বিধি-বিধানের আলোকে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

আজ শনিবার (২৮ জানুয়ারি) দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজী মোতাহার হোসেন ভবন প্রাঙ্গণে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আইন অনুষদ শাখা আয়োজিত `মুক্তির মন্ত্রে বঙ্গবন্ধু: সংবিধান এবং আইনের শাসন` শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

এ সময় মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে আইনের শাসন ধ্বংস করার জন্য দেশে ও দেশের বাইরে সম্মিলিত যে চেষ্টা হয়েছিল সে চেষ্টার বিপরীতে প্রত্যয়দীপ্ত সাহসী ভূমিকা রেখে বঙ্গবন্ধু কন্যা আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করেছেন। আজ সংবিধানের বিধি-বিধানের আলোকে বাংলাদেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা হয়েছে।

শ ম রেজাউল করিম আরো বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে নির্মমভাবে হত্যার পর বাংলাদেশে খুনের রাজত্ব কায়েম, খুনিদের পুনর্বাসন, গণতন্ত্র ধ্বংস করা, আইনের শাসন ধ্বংস করা, তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বিতর্কিত করা-এসব কাজ  বঙ্গবন্ধুর খুনিরা এবং পরবর্তীতে খন্দকার মোশতাক, জিয়াউর রহমান, এরশাদ ও খালেদা জিয়া ধারাবাহিকভাবে করেছে। তারা স্বাধীনতার মূলমন্ত্রের বিরোধীদের রাষ্ট্রক্ষমতায় অধিষ্ঠিত করেছে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধ্বংস করেছে, আইনের শাসন ধ্বংস করে বাংলাদেশকে জঘন্য পর্যায়ে নিয়ে গেছে। অবৈধভাবে ক্ষমতায় যারা এসেছে, সবাই আইনের শাসনের পরিপন্থী কাজ করেছে। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ফিরে এসে যুদ্ধাপরাধের বিচার, বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচারসহ বড় বড় অপরাধের বিচার করে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করেছেন।

প্রধান অতিথি আরো বলেন, দেশের সর্বোচ্চ আইন সংবিধান। সংবিধান এবং আইনের শাসন অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত। আইনের শাসনের পূর্বশর্ত হচ্ছে আইন অনুযায়ী সবকিছু হবে। সে আইন, যে আইন সংবিধানের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ, সংবিধানের সাথে সাংঘর্ষিক নয়। আইনের শাসনের কথা বলতে গেলে সাংবিধানিক বিধি-বিধানের বাইরে যাওয়ার কোন অবকাশ নেই। আইনের শাসনে বিশ্বাসী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের সংবিধান দিয়েছেন। পরবর্তীতে সেটাকে পুনঃপ্রতিষ্ঠা করেছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা।

তিনি আরো যোগ করেন, সংবিধানের ১৫ অনুচ্ছেদে বর্ণিত মৌলিক চাহিদা অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান,শিক্ষা, চিকিৎসা এবং সংবিধানের চারটি স্তম্ভ গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা ও জাতীয়তাবাদ প্রতিষ্ঠা হয়েছে বঙ্গবন্ধুর হাতে ধরে। বঙ্গবন্ধুর উত্তরসূরি শেখ হাসিনা সেটা বিকশিত করছেন। শেখ হাসিনা বিশ্বাস করেন আইনের শাসনের কোন বিকল্প নেই।

মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু একটি দর্শন, একটি বিশ্বাস, একটি প্রেরণা। শুধু বাংলাদেশেই নয়, বিশ্বের যে কোন অঞ্চলে নির্যাতিত, নিপীড়িত ও শোষিত মানুষরা যখনই পথ হারিয়ে নতুন কোন দিগন্তের কথা ভাববে, তখন বঙ্গবন্ধু নামক বিশ্বাস ও দর্শনের কাছে ফিরে আসতে হবে। যখনই কোন জাতি পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে, অর্থনৈতিক বিপর্যয় থেকে মুক্তি চাইবে অথবা স্বাধিকার আদায়ে কোন বাধার সম্মুখীন হবে, তখনই স্মরণ করতে হবে বঙ্গবন্ধুর জীবনালেখ্য। বঙ্গবন্ধু সে কারণেই আজ ও আগামীতে অনিবার্য।

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আইন অনুষদ শাখার সভাপতি আফরেদী হাসান সেজার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান আলোচক ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদ। বিশেষ আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক আব্দুন নূর দুলাল এবং বাংলাদেশ আইন সমিতির সভাপতি মঞ্জুর মোর্শেদ শাহনেওয়াজ টিপু। আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেন, সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান এবং বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি মাজহারুল কবির শয়ন।

বিএনপির পদযাত্রা শুরু
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:

চলমান কর্মসূচির অংশ হিসেবে রাজধানীর বাড্ডার সুবাস্তু টাওয়ারের সামনে থেকে পদযাত্রা শুরু করেছে বিএনপি। শুরুর আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন মির্জা ফখরুল।

নিবার দুপুর আড়াইটায় শুরু হওয়া এই পদযাত্রা রামপুরা হয়ে মালিবাগ চৌধুরীপাড়া আবুল হোটেলের সামনে গিয়ে শেষ হবে।

পদযাত্রায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত রয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এছাড়া বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য, সিনিয়র নেতৃবৃন্দ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতারা উপস্থিত রয়েছেন।

সভাপতিত্ব করছেন ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান। সঞ্চালনা করছেন ঢাকা উত্তর বিএনপির সদস্য সচিব আমিনুল হক।

গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের দাবিতে স্লোগান, মিছিল ও সমাবেশের বাইরে রাজধানীতে নিঃশব্দ পদযাত্রার চার দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিএনপি। এই কর্মসূচির মধ্য দিয়ে সরকারবিরোধী আন্দোলনে ঢাকায় দলের নেতাকর্মী, সমর্থক ছাড়াও সাধারণ মানুষকে সম্পৃক্ত করতে চায় দলটি।

গত বৃহস্পতিবার নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ পদযাত্রা কর্মসূচির ঘোষণা দেন। তিনি জানান, ২৮ জানুয়ারি থেকে ১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপি পদযাত্রা কর্মসূচি পালন করবে।

এদিকে ‘বিদ্যুৎ-গ্যাসসহ নিত্যপণ্যের দাম কমানো, সরকারের পদত্যাগসহ ১০ দফা’ দাবিতে আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি ঢাকাসহ সব বিভাগীয় শহরে সমাবেশ করবে বলেও ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি। গত বুধবার নয়াপল্টনের সমাবেশ থেকে এ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

বিএনপি পিছনের দরজা দিয়ে আসার দিবাস্বপ্ন দেখছে : এনামুল হক
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:

পানি সম্পদ উপমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামীম এমপি বলেছেন, জিয়াউর রহমান বন্দুকের নলের মুখে পেছনের দরজা দিয়ে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ক্ষমতায় এসেছিলেন। বিচারপতি সায়েমকে বন্দুকের নল ঠেকিয়ে নিজেকে রাষ্ট্রপতি হিসেবে ঘোষণা করতে বাধ্য করেন। নিজের ক্ষমতা টিকিয়ে রাখার জন্য জিয়া ‘হ্যাঁ’  ‘না’ ভোট করে। সেই নির্বাচনে জিয়া একাই প্রার্থী ছিলেন। নিজেই বিচারকদের আদালতের রায় লিখে দিতেন। অনেক মুক্তিযোদ্ধা সেনা কর্মকর্তাকে ফাঁসি দিয়েছেন। দেশে হত্যা-গুম ও খুনের রাজনীতি চালু করেন। বঙ্গবন্ধুদের খুনিদের সাক্ষাৎকারই প্রমাণ করে জিয়া বঙ্গবন্ধু হত্যার মাস্টারমাইন্ড। খালেদা জিয়াও একই কায়দায় ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি প্রহসনের নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় এসেছিলেন। আওয়ামী লীগের আন্দোলনের কারণেই অল্প কয়েকদিনের মাথায় খালেদা পদত্যাগ করতে বাধ্য হন। ২০০১ সালের পর খালেদা জিয়া হাজার হাজার আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীকে হত্যা করেন। তারা আবারও পেছনের দরজা দিয়ে ক্ষমতায় হাওয়া ভবন খুলতে চায়। সেই দিবাস্বপ্ন আর কোনদিনই পূরণ হবে না।

আজ (২৮ জানুয়ারী)  শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার রাজনগরে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এনামুল হক শামীম বলেন, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার পথে বিএনপি আবারও বিঘ্ন সৃষ্টি করতে নতুন নতুন কৌশলে ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। দেশের চলমান স্থিতিশীলতা বিনষ্টের জন্য তারা যতই চেষ্টা করুক, কখনও সফল হবে না। বিএনপি নির্বাচন, আন্দোলন ও রাজপথে ব্যর্থ হলেও ক্ষমতায় থাকতে দেশের অর্থপাচার এবং লুটপাটে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ান হয়েছিল।বিএনপি নিজেরা আন্দোলন করতে না পেরে অন্যের কাঁধে ভর করে এবং বিদেশীদের কাছে ধরনা দেয়।আন্দোলন করে ক্ষমতাচ্যুত করার শক্তি বিএনপি`র নাই। তারা এসব করে দেশের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করতে চায়। এরা দেশ ও জাতির শত্রু।

উপমন্ত্রী  বলেন, অপরাজনীতির কারণে জনবিচ্ছিন্ন গণধিকৃত বিএনপি আর কোনো দিন ক্ষমতায় আসবে না। যতই আন্দোলনের নামে ফটোসেশন করুক। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার মাস্টার মাইন্ড তারেক রহমান ও এতিমের টাকা মেরে খাওয়ার মামলায় সাজাপ্রাপ্ত খালেদা জিয়ার দলকে বিএনপি আর কোনোদিনই এদেশে ক্ষমতায় আসবে না। বিএনপি যদি এতই জনপ্রিয় হয়, তাহলে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে জনপ্রিয়তা যাচাই করুক। ক্ষমতায় আসতে হলে বিএনপিকে নির্বাচন কমিশনের অধীনে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে হবে। দেশের জনগণ উন্নয়নে বিশ্বাস করে। এদেশের উন্নয়ন, সমৃদ্ধি, শান্তি, সততা ও নির্ভরতার প্রতিক বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা আগামী নির্বাচনেও আবারও ক্ষমতায় আসবে। আর জননেত্রী শেখ হাসিনা হবে পঞ্চমবারের মতো প্রধানমন্ত্রী। পৃথিবীর ইতিহাসে এক বিরল রেকর্ড স্থাপন করবেন।

রাজনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম মীর মালতের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য অধ্যক্ষ দেলোয়ার হোসেন তালুকদার, নড়িয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাসানুজ্জামান খোকন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম সিকদার, সাংগঠনিক সম্পাদক মিহির চক্রবর্তী, রাজনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি দাদন মীর বহর, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মজিবর মেলকার, সাধারন সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান আবু আলেম মাদবর প্রমূখ।

বিএনপি নেতা খায়রুল কবির খোকনের বাড়িতে ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগ
                                  

জেলা প্রতিনিধি, নরসিংদী:

বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব ও নরসিংদী জেলা বিএনপির আহ্বায়ক খায়রুল কবির খোকনের বাড়িতে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছে দুর্বৃত্তরা। বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) রাত ৯টার দিকে সদর উপজেলার চিনিশপুর এলাকায় খোকনের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, ওই দিন বিকেলে সিদ্দিকুর রহমান নাহিদকে সভাপতি ও মেহেদী হাসান রিফাতকে সাধারণ সম্পাদক করে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট ছাত্রদলের জেলা কমিটি ঘোষণা করা হয়। কমিটিতে পদ না পেয়ে বঞ্চিতদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। রাত ৯টার দিকে চিনিশপুরের তিতাস গ্যাস অফিসের সামনে ২০-২৫ জনের একটি দল ‘ছাত্রদলের এ কমিটি মানি না’ স্লোগান দিয়ে মশালসহ খোকনের বাড়িতে গিয়ে বাড়ির প্রধান ফটকের গেট ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে। এ সময় ভিতরের ব্যানার-ফেস্টুন ভাঙচুর করে। ভবনের জানালার কাঁচ ভেঙে তারা ভেতরে মশাল নিক্ষেপ করলে আগুন লেগে যায়। পরে তারা মিছিল নিয়ে জেলখানার দিকে চলে যায়।

বাড়ির কেয়ারটেকার কাজল বলেন, আমি ভবনের ভিতরে ছিলাম। হঠাৎ একটি মিছিলের শব্দ শুনতে পাই। তারা গেট ভেঙে ভেতরে ঢুকে ব্যাপক ভাঙচুর করে।

এ বিষয়ে জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মঞ্জুর এলাহী বলেন, জেলা ছাত্রদলের কমিটি ঘোষণা করায় পদবঞ্চিতদের মাঝে কিছুটা উত্তেজনা ছিল। কিন্তু এ ঘটনার সঙ্গে তারা জড়িত কিনা বলতে পারছি না। সিসি ক্যামেরা দেখে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নরসিংদী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাশেম ভূঁইয়া বলেন, কে বা কারা মশাল মিছিল নিয়ে গিয়ে বাসভবনের নিচতলায় অগ্নিসংযোগ করেছে সেটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তদন্তের পর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ব্রাক্ষণবাড়িয়া আলোচনার শীর্ষে উকিল আবদুস সাত্তার ভূইয়া
                                  

মোঃ রেজাউল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া:

উকিল আবদুস সাত্তার ভূইয়া একজন বাংলাদেশী রাজনীতিবিদ  তিনি মোট ৫ বার ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি সাংগঠনিকভাবে বিএনপি চেয়ারপার্সনের সাবেক উপদেষ্টা এবং বাংলাদেশ সরকারের সাবেক ভূমি প্রতিমন্ত্রী হিসেবেও দায়ীত্ব পালন করেন। গত ১লা জানুয়ারি ২০২৩ তিনি বিএনপি থেকে পদত্যাগ করেছেন।

বিএনপির এই প্রবীণ নেতা উকিল আবদুস সাত্তার ভূঁইয়া এখন আলোচনায়। এ আলোচনায় তিনি স্থান করে নিয়েছেন তাঁর সাম্প্রতিক রাজনৈতিক সিদ্ধান্তের কারণে। তিনি জাতীয় সংসদ থেকে দলীয় সদস্যদের পদত্যাগকে অদূরদর্শী আখ্যায়িত করে দল থেকে পদত্যাগ করেন। তাঁরই ছেড়ে দেওয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের উপনির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করে তিনি আসন্ন উপনির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন স্বতন্ত্রভাবে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ উপনির্বাচনের আলোচিত স্বতন্ত্র প্রার্থী উকিল আবদুস সাত্তার ভূঁইয়ার ‘কলার ছড়া’র পক্ষে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছেন আশুগঞ্জ সরাইল উপজেলার নেতাকর্মীরা। এ প্রচারণা ধারাবাহিকভাবে নির্বাচনের আগের দিন পর্যন্ত চলবে। জনগণের ভোটে ‘কলার ছড়া’র জয় হবেই এই স্লোগান উৎসুক জনতার মুখে মুখে। উপনির্বাচনে উকিল সাত্তার ছাড়াও অপর তিন স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু আসিফ আহমেদ, জাপার প্রার্থী অ্যাডভোকেট আবদুল হামিদ ভাসানী ও জাকের পার্টির প্রার্থী জহিরুল ইসলাম জুয়েলও নির্বাচনী মাঠে থেকে প্রচারে অংশ নিচ্ছেন। তবে সার্বিক দিক বিবেচনায় জনপ্রিয়তার শীর্ষে ও অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী উকিল আব্দুস সাত্তার ভূঁইয়া। শিক্ষাগত যোগ্যতা, পারিবারিক ঐতিহ্য এবং রাজনৈতিক পরিপক্বতায় এগিয়ে আছেন তিনি।

তিনি এলাকায় যথেষ্ট জনপ্রিয় এবং  রাজনৈতিক ক্যারিয়ার রয়েছে উকিল আব্দুস সাত্তার ভূঁইয়ার। ৫ বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত এই ব্যক্তি বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা এবং জেলা বিএনপির উপদেষ্টা ছিলেন। তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকও ছিলেন। পারিবারিক কারণ দেখিয়ে বিএনপি থেকে পদত্যাগ করে শূন্য হওয়া আসনের উপনির্বাচনে নিজে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার সম্মতি প্রদানের মধ্যেও আছে তাঁর দেশপ্রেমের প্রকাশ।
 
তিনি এলাকার মানুষের উন্নয়নে নিবেদিত প্রাণ।  তিন দশকের পথ চলায় তাঁর রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা যেমন পরিপক্ব হয়েছে তেমনি স্থানীয় বাসিন্দাদের চিনেছেন নিবিড়ভাবে। রাজনীতির দুষ্টচক্রকে দূরে ঠেলে নিজেকে মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য করে তুলেছেন এই নেতা।

 এখন তিনি স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচন করছেন ফলে দলমত নির্বিশেষে এলাকার সবাই তার  পক্ষে আছেন।  এটিকে স্বাগত জানিয়েছেন।’ ১ ফেব্রুয়ারি ভোট দিয়ে উকিল আব্দুস সাত্তারকে নির্বাচিত করবে বলে জানান এলাকাবাসী।  উক্ত আসনের ৩ লাখ ৭৩ হাজার ১৪৮ জন ভোটার।


আ.লীগ ঢাকা মহানগরের যৌথসভা কাল
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক:

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নেতাদের সঙ্গে ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকদের এক যৌথসভা শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) বিকেল ৪টায় দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে।

বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়ার সই করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়েছে, সভায় সভাপতিত্ব করবেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সভায় সংশ্লিষ্ট সবাইকে স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিধি মেনে যথাসময়ে উপস্থিত থাকার জন্য বিনীত অনুরোধ জানানো হয়েছে।

১০ দফা দাবি আদায়ে বিএনপির পদযাত্রা কর্মসূচি
                                  

স্টাফ রিপোর্টার:

দশ দফা দাবি আদায়ে আগামী সপ্তাহে রাজধানীর চার স্থানে পদযাত্রা কর্মসূচি পালন করবে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপি। বৃহস্পতিবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

মির্জা ফখরুল বলেন, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার, সরকারের পদত্যাগ, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে শুরু হওয়া আন্দোলনে জনগণ সম্পৃক্ত হচ্ছে। এরমধ্যে আন্দোলনে বিএনপির ১৫ জন নিহত হয়েছে।
১০ দফা দাবি আদায়ে রাজধানীতে পদযাত্রা করবে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপি।

ঢাকা মহানগর উত্তরে আগামী ২৮ জানুয়ারি দুপুর ২টায় বাড্ডা সুবাস্তু টাওয়ারের সামনে থেকে মালিবাগ আবুল হোটেল পর্যন্ত পদযাত্রা করা হবে। ৩১ শে জানুয়ারি দুপুর ২টায় গাবতলী থেকে শুরু হয়ে মাজার রোড হয়ে মিরপুর ১০নম্বর গোল চত্বরে গিয়ে শেষ হবে।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণে আগামী ৩০শে জানুয়ারি দুপুর ২টায় যাত্রাবাড়ী থেকে শ্যামপুর পর্যন্ত পদযাত্রা কর্মসূচি পালন করা হবে। ১লা ফেব্রুয়ারি দুপুর ২টায় মুগদা থেকে মালিবাগ গিয়ে শেষ হবে ‌এ পদযাত্রা। এই পদযাত্রা শান্তিপূর্ণভাবে সমাপ্ত হবে, জনগণকে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নেয়ার আহ্বান জানান ফখরুল।

অভিযোগ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, জনগণের দাবিতে বিএনপির শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে হামলা চালানো হচ্ছে। নিম্ন আদালত সরকারের নিয়ন্ত্রণে চলছে। হাইকোর্ট থেকে জামিন নিয়ে নিম্ন আদালতে গেলে তাদের কারাগারে পাঠিয়ে দেয়া হয়। এতে প্রমাণ হয় নিম্ন আদালত সরকারের নিয়ন্ত্রণে চলছে। নির্যাতন নিপীড়ন ভয়াবহ পর্যায়ে নিয়ে গেছে সরকার।

তিনি বলেন, বিএনপির আন্দোলন নিয়ে আওয়ামী লীগ নেতারা যাই বলুক, সরকারের বক্তব্যের জবাব দেয়া হবে রাজপথে। একইসাথে বিএনপির এই কর্মসূচি যুগপৎভাবে পালন করা হবে।

৪ ফেব্রুয়ারি সারাদেশে বিএনপির সমাবেশ ও বিক্ষোভ
                                  

স্টাফ রিপোর্টার:

যুগপৎ আন্দোলনের অংশ হিসেবে সরকারের পতনসহ ১০ দফা দাবিতে, আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি আবারও ঢাকাসহ সারাদেশে সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিলের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিএনপি।

বুধবার (২৫ জানুয়ারি) নয়াপল্টনে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, আবারও নির্বাচনের নামে নাটক করতে দেয়া হবে না। পাঠ্যবই বাংলাদেশের সংস্কৃতি অনুযায়ী, নতুন করে ছাপাতে হবে।

তিনি বলেন, রাষ্ট্রপতি প্রধানমন্ত্রীর কথার বাইরে কিছুই করতে পারে না। দশদফা অনুযায়ী রাষ্ট্রপতির ক্ষমতার ভারসাম্য আনতে হবে। সরকারের সময় হয়ে গেছে, এবার এই সরকারের বিদায় নিতে হবে। আন্দোলনের মধ্য দিয়ে গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠা করবে বিএনপি।

জামিন পেলেন বিএনপির খোকন-মিলন
                                  

স্টাফ রিপোর্টার:

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন এবং গাজীপুর জেলা বিএনপির সভাপতি ফজলুল হক মিলন মুক্তি পেয়েছেন।

বুধবার (২৫ জানুয়ারি) দুপুর সোয়া ২ টার দিকে কেরানীগঞ্জ ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে তারা জামিনে মুক্তি পান।

বিএনপি জানায়, তাদের জামিননামা মঙ্গলবার কারাগারে পৌঁছায়। প্রক্রিয়া শেষে আজকে দুজনেই মুক্তি পান।

দলের নেতাকর্মীরা কারাগারের সামনে তাদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

কারাগারে গুরুতর অসুস্থ বিএনপি নেতা রিজভী
                                  

স্বাধীন বাংলা ডেস্ক:

কারাগারে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী। সোমবার দুপুর থেকেই রিজভী অসুস্থ বলে জানান তার স্ত্রী আঞ্জুমান আরা আইভী।

মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় তিনি জানান, রুহুল কবির রিজভী কারাগারে মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। সোমবার দুপুরে তিনি প্রচণ্ড পেটে ব্যথা অনুভব করেন। সঙ্গে বমিও হয়েছে। পরে তাকে করাগারের ভেতরে কারা হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে বলে জেনেছি।

আঞ্জুমান আরা আইভী বলেন, আমি গতকাল সোমবার কারাগেটে গিয়েছিলাম কিছু বই দিতে। সে সময় কিছুই জানতে পারিনি।

রিজভীর স্ত্রী আরও বলেন, স্বৈরাচার এরশাদ বিরোধী আন্দোলনের সময় রুহুল কবির রিজভী পেটে গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হয়ছিলেন। তখন দেশে ও পরে বিদেশে তার পেটে অস্ত্রোপচার হয়। এরপর মাঝে–মধ্যে তার পেটে সমস্যা হতো। সেই থেকে প্রায় ত্রিশ বছর ধরে রিজভী হাতের স্পর্শে খাবার খান না। খোলা পানিও খান না। চিকিৎসকের পরামর্শে বোতলজাত পানি পান করতে হয় রিজভীকে। কারাগারে পানির বোতল পাঠিয়েছি। কিন্তু রিজভীকে খেতে দেওয়া হচ্ছে কিনা তা জানি না।

অনতিবিলম্বে রুহুল কবির রিজভীকে নিঃশর্ত মুক্তি দিয়ে উন্নত ও সুচিকিৎসার দাবি জানান তার স্ত্রী আঞ্জুমান আরা।

মহামারি করেনার সময়ও রিজভী করোনা ভাইরাসে দুই বার আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘ চার মাস রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। সেই থেকে চিকিৎসকের কঠোর নির্দেশনা মেনে জীবন-যাপন করতে হয় তাকে।

গত ১০ ডিসেম্বর বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় গণসমাবেশকে ঘিরে ৭ ডিসেম্বর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে দলের নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়। ওই দিনই বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে প্রায় সাড়ে চারশতাধিক নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়। সেদিন রুহুল কবির রিজভীকেও আটক করে কারাগারে নেওয়া হয়। সম্প্রতি তাকে বিভিন্ন মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা কাল
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক:

রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা কাল, স্পিকার শিরীন শারমিন চোধুরীর সাথে সাক্ষাৎ শেষে এ কথা জানান প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল।  

মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) দুপুরে স্পিকারের সঙ্গে বৈঠক শেষে তিনি এ কথা  জানান। এদিন দুপুর ২টায় স্পিকারের সাথে বৈঠক করতে সংসদে যান প্রধান নির্বাচন কমিশনার।

বৈঠক শেষে সিইসি বলেন, বৈঠকে তফসিল ঘোষণার সিদ্ধান্ত হয়েছে। ফলে বুধবার সকাল ১১টায় কমিশন সভার আহ্বান করা হয়েছে। সেখানে দেশের ২২তম রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের জন্য তফসিল চূড়ান্ত হবে।

সিইসি বলেন, আমাদের সাক্ষাৎকার সংক্ষিপ্ত ছিল। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি- বুধবার সকাল ১১ টায় নির্বাচন কমিশন সভা করবো। সভা করে আমরা তফসিলটা উন্মুক্ত করবো, তখন আপনারা বিস্তারিত জানতে পারেন।

স্পিকারের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে নির্বাচন ভবনে ফিরে বিকাল তিন টায় সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন সিইসি।

কাজী হাবিবুল আউয়াল জানান, রাষ্ট্রপতি নির্বাচনকে সামনে রেখে আইন অনুযায়ী তফসিল ঘোষণার আগে স্পিকারের সঙ্গে সিইসির সাক্ষাৎ করতে হয়।

রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে সিইসি থাকেন নির্বাচনী কর্মকর্তা। সংবিধানের ১২৩ (১) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে- রাষ্ট্রপতি পদের মেয়াদ অবসানের কারণে এ পদ শূন্য হলে মেয়াদ সমাপ্তির তারিখের আগের ৯০ থেকে ৬০ দিনের মধ্যে শূন্য পদ পূরণের জন্য নির্বাচন হবে।

রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন সংসদ সদস্যদের ভোটে। সংসদে আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকায় তাদের প্রার্থীর রাষ্ট্রপতি হওয়াটা নিশ্চিত।

সবশেষ রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিল হয় ২০১৮ সালের ২৫ জানুয়ারি। সে সময় ১৮ ফেব্রুয়ারি ভোটের তারিখ থাকলেও প্রার্থী একজন থাকায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৬ ফেব্রুয়ারি দ্বিতীয় দফায় রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন মো. আবদুল হামিদ। আগামী ২৩ এপ্রিল শেষ হবে তার শেষ মেয়াদ।

এবার ২৩ জানুয়ারি থেকে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের ক্ষণ গণনা শুরু হয়েছে। ২৩ ফেব্রুয়ারির মধ্যে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন করতে হবে।


   Page 1 of 70
     রাজনীতি
বিএনপি সন্ত্রাসী সংগঠন : শেখ পরশ
.............................................................................................
১০ বিভাগীয় শহরে বিএনপির সমাবেশ আজ
.............................................................................................
অল্পের জন্য হেরে গেলেন হিরো আলম
.............................................................................................
ছাত্রদলের নেতাদের ওপর পদবঞ্চিতদের হামলা, আহত ৮
.............................................................................................
নিজ কেন্দ্রে ভোট দিলেন আলোচিত প্রার্থী উকিল আব্দুস সাত্তার ভূইয়া
.............................................................................................
দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করেছেন শেখ হাসিনা: প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী
.............................................................................................
বিএনপির পদযাত্রা শুরু
.............................................................................................
বিএনপি পিছনের দরজা দিয়ে আসার দিবাস্বপ্ন দেখছে : এনামুল হক
.............................................................................................
বিএনপি নেতা খায়রুল কবির খোকনের বাড়িতে ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগ
.............................................................................................
ব্রাক্ষণবাড়িয়া আলোচনার শীর্ষে উকিল আবদুস সাত্তার ভূইয়া
.............................................................................................
আ.লীগ ঢাকা মহানগরের যৌথসভা কাল
.............................................................................................
১০ দফা দাবি আদায়ে বিএনপির পদযাত্রা কর্মসূচি
.............................................................................................
৪ ফেব্রুয়ারি সারাদেশে বিএনপির সমাবেশ ও বিক্ষোভ
.............................................................................................
জামিন পেলেন বিএনপির খোকন-মিলন
.............................................................................................
কারাগারে গুরুতর অসুস্থ বিএনপি নেতা রিজভী
.............................................................................................
রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা কাল
.............................................................................................
চলমান আন্দোলনেই সরকারের পতন : মির্জা ফখরুল
.............................................................................................
বুধবার রাজধানীতে সমাবেশ করবে আওয়ামী লীগ
.............................................................................................
খালেদা জিয়ার নাশকতা ও রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার শুনানি ১৫মে
.............................................................................................
প্রকাশ্য সমাবেশে ঘোষণা হবে খুলনা যুবলীগের নতুন নেতৃত্ব
.............................................................................................
গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বাড়ায় দ্রব্যমূল্য কিছুটা বাড়বে: রংপুরে বাণিজ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
`দেশব্যাপী জনমত গঠনে কার্যকর উদ্যেগ গ্রহণ করতে হবে`
.............................................................................................
‘ফ্যাসিবাদবিরোধী বাম মোর্চা’ নামে ইস্যুভিত্তিক জোটের আত্মপ্রকাশ
.............................................................................................
বাংলাদেশের অবস্থা অনেক দেশের চাইতে ভালো: লিয়াকত শিকদার
.............................................................................................
গ্যাস-বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে সাংস্কৃতিক দলের মানববন্ধন
.............................................................................................
জিএম কাদেরের দায়িত্ব পালনে নিষেধাজ্ঞা বহাল
.............................................................................................
মুক্তি পেলেন বিএনপি নেতা সালাম ও এ্যানি
.............................................................................................
ডোনাল্ড লু’র ঢাকা সফর নিয়ে মিথ্যাচার করেছে সরকার: ফখরুল
.............................................................................................
দেশ গভীর ষড়যন্ত্রের মুখে: কাদের
.............................................................................................
দেশে গায়ের জোরের শাসন চলছে: মোশাররফ
.............................................................................................
মামুনুল হকের মুক্তিসহ ৪ দফা দাবিতে ৭ ফেব্রুয়ারি সমাবেশ
.............................................................................................
হাসপাতাল থেকে বাসায় ফিরলেন ফখরুল
.............................................................................................
২৫ জানুয়ারি সারাদেশে বিক্ষোভ সমাবেশ করবে গণতন্ত্র মঞ্চ
.............................................................................................
২৫ জানুয়ারি জেলা-মহানগরে সমাবেশের ডাক বিএনপির
.............................................................................................
ঘাটাইলে ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের উপর পুলিশের হামলা
.............................................................................................
তালতলী উপজেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা
.............................................................................................
বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত গণবিরোধী ও অবিবেচনাপ্রসূত : মির্জা ফখরুল
.............................................................................................
কাল বিএনপির যৌথসভা
.............................................................................................
অবশ্যই নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হতে হবে : সেন্টু
.............................................................................................
রাষ্ট্রপতি পদে যাওয়ার যোগ্যতা আমার নেই : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
দেশে ফিরে মোসাদ এজেন্টের সঙ্গে দেখা করা নিয়ে মুখ খুললেন ভিপি নুর
.............................................................................................
জোর করে আর ক্ষমতায় থাকতে পারবেন না: আব্বাস
.............................................................................................
বিএনপির নতুন কর্মসূচি ঘোষণা
.............................................................................................
নয়াপল্টনে বিএনপির গণঅবস্থান কর্মসূচি শুরু
.............................................................................................
কাল অবস্থান কর্মসূচি পালন করবে ছাত্রলীগ
.............................................................................................
সংহিসতার জবাব দিতে প্রস্তুত আওয়ামী লীগ : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
কারাগার থেকে বেরিয়ে যা বললেন ফখরুল-আব্বাস
.............................................................................................
আপিল বিভাগেও ফখরুল-আব্বাসের জামিন বহাল
.............................................................................................
ঐক্যবদ্ধ আ.লীগকে কেউ পরাজিত করতে পারবে না: প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী
.............................................................................................
নয়াপল্টনে মহিলা দলের বিক্ষোভ মিছিল
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Dynamic Solution IT