সোমবার, ৪ জুলাই 2022 বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
   * ভাবিকে হত্যার দায়ে দেবরের যাবজ্জীবন   * ঘোড়াঘাটে দুইবন্ধু গরু-ছাগলের খামার করে বেশ লাভবান   * পদ্মা সেতুতে মা-বোনের সঙ্গে উচ্ছ্বসিত জয়  
  সর্বশেষ সংবাদ
                              আজকের পত্রিকার লিড
আকাশস্পর্শী অহংকারের দিন আজ

জামিল আহমেদ 

বিশ্বব্যাপী এটি পরিচিতি পেয়েছে বাংলাদেশের ‘মর্যাদা ও সক্ষমতার প্রতীক’ হিসেবে, প্রমত্তা পদ্মার ওপর দিয়ে নির্মিত সেতুটি খুলে দেয়ার আগেই পরিচিতি পেয়েছে বিজয়ের প্রতীক’ হিসেবে, স্বপ্নের সেই সেতুর বহুল প্রতীক্ষিত উদ্বোধন আর কিছু সময় পর।

গল্পটা বিশ্বকে বিস্মিত করে নিজেদের সক্ষমতা জানান দেয়ার, গল্পটা মাথা তুলে দাঁড়াবার। গল্পটা পদ্মা সেতুর। এই গল্প বাংলাদেশের আকাশস্পর্শী অহংকারের। আর তাই প্রমত্তা পদ্মার উপর দিয়ে নির্মিত সেতুটি খুলে দেয়ার আগেই বিশ্বব্যাপী এটি পরিচিতি পেয়েছে বাংলাদেশের ‘মর্যাদা ও সক্ষমতার প্রতীক’ হিসেবে। স্বপ্নের সেই সেতুর বহুল প্রতীক্ষিত উদ্বোধন আজ।

দুর্নীতির মিথ্যা অভিযোগ এনে অর্থায়ন থেকে বিশ্বব্যাংক মুখ ফিরিয়ে নিলে অনিশ্চিত হয়ে পড়ে সেতু নির্মাণ, শুরু হয় রাজনৈতিক বাদানুবাদ। উত্তাল-অস্থির সেই সময়ে অনমনীয় দৃঢ়তায় নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতুর নির্মাণের ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর প্রায় এক দশক পর তার হাতেই উদ্বোধন হতে যাচ্ছে স্বপ্নের সেতুটি।

২৫ জুন শনিবার ঘড়ির কাঁটা সকাল ১০টা নির্দেশ করতেই উদ্বোধন হবে পদ্মা সেতু। মুন্সিগঞ্জের মাওয়া প্রান্ত থেকে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন বঙ্গবন্ধুকন্যা। তবে এর একদিন পর যান চলাচল শুরু হবে পদ্মা সেতুতে।

জমকালো আয়োজনে মুখরিত পদ্মার তীর

সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে পদ্মার দুই পার এখন উচ্ছ্বাস মুখরিত। জমকালো আয়োজনে সেতু খুলে দেয়ার অপেক্ষায় সারা দেশ।

শনিবার সকাল সাড়ে ৯টায় তেজগাঁও বিমানবন্দর থেকে মুন্সিগঞ্জের মাওয়া প্রান্তের উদ্দেশে হেলিকপ্টারে রওনা হবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

যোগ দেবেন সুধী সমাবেশে। রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ সাড়ে তিন হাজার নাগরিককে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে এই সমাবেশে।

পদ্মা সেতুতে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ন বন্ধে অন্যতম অনুঘটক হিসেবে সরকারের পক্ষ থেকে দায়ী করা গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা ড. মুহাম্মদ ইউনূসও বাদ পড়েনি আমন্ত্রিত অতিথিদের তালিকা থেকে। আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে সেতু নিয়ে নানা সমালোচনা করে আসা রাজনৈতিক দল বিএনপির সাত নেতাকেও।

১১টার দিকে স্মারক ডাকটিকিট, স্যুভেনির শিট, উদ্বোধনী খাম ও সিলমোহর অবমুক্ত করবেন সরকারপ্রধান। পদ্মা সেতু নির্মাণ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে ফটোসেশনে অংশ নেয়ার কথাও রয়েছে তার। ১১ টা ১২ মিনিটে টোল দিয়ে মুন্সিগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে সেতুর উদ্বোধনী ফলক ও ম্যুরাল-১ উন্মোচন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এরপর ১১টা ২৩ মিনিটের দিকে পদ্মা সেতু পাড়ি দেবেন বঙ্গবন্ধুকন্যা। এ সময় কিছুক্ষণের জন্য গাড়ি থেকে নেমে সেতুতে পায়চারি করতে পারেন তিনি।

১১টা ৪৫ মিনিটের দিয়ে শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্তে পৌঁছেই পদ্মার সেতুর আরেকটি উদ্বোধনী ফলক ও ম্যুরাল-২ উন্মোচন করবেন প্রধানমন্ত্রী। এরপর কাঁঠালবাড়ির ইলিয়াছ আহমেদ চৌধুরী ফেরিঘাটে আওয়ামী লীগের জনসভায় দলপ্রধান হিসেবে যোগ দেবেন শেখ হাসিনা।

সেতু বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, শনিবার পদ্মা সেতুর মাওয়া প্রান্তের দিকে ছয়টি স্প্যান ও জাজিরা প্রান্তের দিকের ছয়টি স্প্যান সাধারণ মানুষের জন্য খুলে দেয়া হতে পারে।

রোববার ভোর ৬টা থেকে যান চলাচলের জন্য খুলে দেয়া হবে পদ্মা সেতু। ফুরাবে ফেরি পারাপারের বিড়ম্বনা, বাঁচবে সময়। বদলে যাবে দৃশ্যপট, আরও সচল হবে দেশের অর্থনীতির চাকা।

স্বপ্নের শুরু

বিচ্ছিন্ন জনপদ হয়ে থাকা দেশের দক্ষিণাঞ্চলকে রাজধানীর সঙ্গে যুক্ত করতে পদ্মার ওপর সেতু নির্মাণের দাবি দীর্ঘদিনের। তবে সেটি বাস্তবায়নে দৃশ্যমান তৎপরতা শুরু হয় ২৫ বছর আগে।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যার ২১ বছর পর ১৯৯৬ সালে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ক্ষমতায় আসে আওয়ামী লীগ। প্রথমবারের মতো দেশের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন বঙ্গবন্ধুকন্যা।

পরের বছর অর্থাৎ ১৯৯৭ সালে জাপান সফরে যান তিনি। সে সময়ের ঘটনা স্মরণ করে বুধবার নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে শেখ হাসিনা বলেন, ‘পদ্মা নদী এবং রূপসা নদীর ওপর সেতু নির্মাণের প্রস্তাব করি। জাপান সরকার দুটি নদীর ওপরই সেতু নির্মাণে রাজি হয়। যেহেতু পদ্মা অনেক খরস্রোতা, বিশাল নদী, তাই পদ্মা নদীতে সমীক্ষা শুরু করে।’

সমীক্ষা শেষে মুন্সিগঞ্জের মাওয়া প্রান্তকে পদ্মা সেতু নির্মাণের উপযুক্ত স্থান হিসেবে নির্বাচন করে জাপান। সেই সমীক্ষার ভিত্তিতে ২০০১ সালের ৪ জুলাই মুন্সিগঞ্জের মাওয়ায় পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন শেখ হাসিনা। এর ঠিক ১১ দিন পর, অর্থাৎ ওই বছরের ১৫ জুলাই শেষ হয় আওয়ামী লীগ সরকারের মেয়াদ। পরের জাতীয় নির্বাচনে ক্ষমতায় আসে বিএনপি নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট।

পদ্মা সেতুকে মাওয়া প্রান্ত থেকে সরিয়ে আরিচায় নেয়ার চেষ্টা করে বিএনপি-জামায়াত জোট। তবে শেষ পর্যন্ত হয়নি পদ্মা সেতু।

আবারও ঘুরে দাঁড়ানো

২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে ক্ষমতায় আসে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট। দ্বিতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন শেখ হাসিনা। আবারও শুরু হয় পদ্মা সেতু নির্মাণে তোড়জোর।

২০০৯ সালে সরকার গঠনের পর থেকে ২০১১ সালের মধ্যে শেষ করা হয় সেতুর মূল নকশা প্রণয়নের কাজ। ২০১০ সালের ১১ এপ্রিল সেতুর দরপত্র আহ্বান করা হয়। ঠিক এক বছর পর ২০১১ সালের ১১ এপ্রিল সেতুতে রেলপথ যুক্ত করে প্রকল্প সংশোধন করা হয়।

তার ১৭ দিন পর অর্থাৎ ২৮ এপ্রিল সেতু নির্মাণে অর্থায়নের বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে ঋণ চুক্তিতে সই করে সরকার। ওই বছরের ২৪ মে সই হয় আইডিবির সঙ্গে ঋণচুক্তি, এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের সঙ্গে ঋণচুক্তি সই হয় ৬ জুন।

চোখ রাঙানোর সাহস

২০১২ সালের জুনে এসে পাল্টে যায় সব হিসাব-নিকাশ। ওই বছরের ২৯ জুন দুর্নীতিচেষ্টার অভিযোগ এনে পদ্মা সেতুর অর্থায়নে এগিয়ে আসা দাতা সংস্থাগুলো বাতিল করে ঋণচুক্তি।

অনিশ্চয়তায় পড়ে যায় পদ্মা সেতুর ভবিষ্যৎ। ঠিক পাঁচ দিন পর ৪ জুলাই সংসদে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের ঘোষণা দেন শেখ হাসিনা। শুরুতে সেই কথা অনেকে গ্রহণ করতে পারেননি। ৮ জুলাই আবারও সংসদে দাঁড়িয়ে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের কথা জানান বঙ্গবন্ধুকন্যা।

পরে অবশ্য বিশ্বব্যাংকের অভিযোগ কানাডার আদালতে মিথ্যা বলে প্রমাণিত হয়। বিশ্বব্যাংক কানাডার আদালতে এসএনসি লাভালিন নামে দেশটির পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে মামলা করে। এই প্রতিষ্ঠানটিই পদ্মা সেতুর পরামর্শকের কাজ পাওয়ার কথা ছিল। তবে সেই মামলা টেকেনি, দেশটির একটি আদালতে বিশ্বব্যাংকের অভিযোগকে ‘গালগপ্প’ বলে উড়িয়ে দেয়।

স্বপ্ন হলো সত্যি

২০১৪ সালের ৭ জুলাই শুরু হয় বহুল প্রতীক্ষিত সেতুটির নির্মাণকাজ। দেশের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয় সেতুটি। তিন বছরের বেশি সময় পর ২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর বসানো হয় প্রথম স্প্যান। পদ্মার দুটি তীরকে সংযুক্ত করতে প্রয়োজন হয় ৩ হাজার ২০০ টন ওজনের ৪১টি স্প্যান।

পদ্মা সেতুর পিলারে প্রতিটি স্প্যান বসানোর খবর জায়গা করে নেয় সংবাদপত্রের শিরোনামে। প্রমত্তা পদ্মায় সেতুটি যত দৃশ্যমান হয়েছে, বেড়েছে মানুষের আগ্রহ। সবশেষ ২০২০ সালের ১০ ডিসেম্বর ৪১তম স্প্যানটি স্থাপনের মধ্য দিয়ে পদ্মার বুকে রচিত হয় বাংলাদেশের গৌরবগাথা।

প্রকৃতির বাধা

খরস্রোতা পদ্মা জয়ের কাজটি মোটেও সহজ ছিল না। দুর্নীতিচেষ্টার ভিত্তিহীন অভিযোগে বিশ্বব্যাংকের সরে দাঁড়ানো, রাজনৈতিক বাদানুবাদ পেরিয়ে পদ্মা সেতু নির্মাণের শুরুতেই সামনে আসে প্রমত্তা পদ্মাকে নিয়ন্ত্রণে আনার চ্যালেঞ্জ।

২০১৫ সালের শেষ দিকে সেতুর ৬ ও ৭ নম্বর পিলারের পাইলিংয়ের কাজ শুরু হয়। তিনটি করে ছয়টি পাইলের নিচের দিকে কাজ করতে গিয়ে হিমশিম খেয়েছেন প্রকৌশলীরা। এর প্রধান কারণ নদীর তলদেশে নরম মাটির স্তর।

তখন ওই দুটি পিলারের ছয়টি পাইলের ওপরের কাজ বন্ধ রাখা হয়। পরে আরও ২১টি পিলারের পাইলিংয়ের সময় তলদেশে কাদামাটি পাওয়া যায়। নদীর তলদেশে পাথর না থাকায় পাইলিংয়ের কাজ ছিল বিশাল চ্যালেঞ্জ। ফলে নকশা বদলে পাইলিংয়ের উপরিভাগে করতে হয়েছে স্ক্রিন গ্রাউটিং। স্ক্রিন গ্রাউটিং বা অতিমিহি সিমেন্টের স্তরের মাধ্যমে পাইলের উপরিভাগে ওজন বহনের ক্ষমতা বাড়ানো হয়।

পিলার নির্মাণ করতে গিয়ে ৯৮ থেকে ১২২ মিটার গভীর পর্যন্ত পাইলিং করতে হয়েছে। পৃথিবীতে আর কোনো সেতু নির্মাণে এতটা গভীর পাইলিং করতে হয়নি। ফলে এটি একটি বিশ্ব রেকর্ড।

পদ্মা সেতুর পাইলগুলোও তিন মিটার ব্যাসার্ধের। অন্য কোনো সেতুর পাইলের ব্যাসার্ধও এত নয়। পদ্মা সেতুর প্রতিটি পাইল ৫০ মিলিমিটার পুরু স্টিলের পাইপে মোড়া।

আর এ কাজটি করার জন্যই জার্মানি থেকে আনা হয় বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী হাইড্রোলিক হ্যামার। জার্মানির মিউনিখে তৈরি ৩৮০ টন ওজনের হ্যামারটি সর্বোচ্চ শক্তি তিন হাজার কিলোজুল। এর সাহায্যে পিটিয়ে পাইলের স্টিলের পাইপগুলো নদীতে পোঁতা হয়।

তিন হাজার ২০০ টন ওজনের স্প্যানকে পদ্মার বুকে নিয়ে পিলারে বসানোর কাজটিও সহজ ছিল না। এ জন্য চীন থেকে নিয়ে আসা হয় বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ শক্তির ভাসান ক্রেন ‘তিয়ান-ই’-কে। পদ্মা সেতুর নির্মাণের প্রতি মুহূর্তকে তাই বলা হয় চ্যালেঞ্জিং।

জনসাহসে মাথা উঁচু

দীর্ঘ এক দশক পর যখন সেতুটির সফল বাস্তবায়ন সম্পন্ন হয়েছে, তখন তার পুরো কৃতিত্বটা দেশের জনগণকেই দিলেন সেতুর স্বপ্নদ্রষ্টা শেখ হাসিনা। দেশের মানুষের সাহসের কারণেই পদ্মা সেতু মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে বলে বিশ্বাস করেন প্রধানমন্ত্রী।

বুধবার শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি বাংলাদেশের মানুষকে ধন্যবাদ জানাতে চাই। শুধু ধন্যবাদ নয়, আমি বাংলাদেশের মানুষের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতে চাই। কারণ যেদিন আমি ঘোষণা দিয়েছিলাম, এই সেতু নিজস্ব অর্থায়নে করব, অনেকে সন্দেহ প্রকাশ করেছিলেন। কিন্তু মানুষের শক্তিতে আমি বিশ্বাস করি।

‘মানুষের কাছ থেকে যে অভূতপূর্ব সাড়া আমি পেয়েছিলাম, এটাই কিন্তু আমার সাহস এবং শক্তি। সেটুকু আপনাদের জানিয়ে রাখি। তাই দেশের মানুষের কাছে আমি কৃতজ্ঞতা জানাই। তারা আমার পাশে দাঁড়িয়েছিলেন। তাদের সহযোগিতার, তাদের সাহসে, এই জনমানুষের সাহসে আজ পদ্মা সেতু মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে।’

পদ্মা সেতুর ব্যয়

২০১১ সালে সেতুর দৈর্ঘ্য বাড়িয়ে সংশোধিত ডিপিপিতে পদ্মা সেতুর ব্যয় ধরা হয় ২০ হাজার ৫০৭ কোটি টাকা।

প্রথম ডিপিপিতে সেতুর ৪১টি স্প্যানের মধ্যে তিনটির নিচ দিয়ে নৌ চলাচলের ব্যবস্থা রেখে নকশা করা হয়। পদ্মার স্রোতের কথা ভেবে পরে ৩৭টি স্প্যানের নিচ দিয়েও নৌযান চলাচলের সুযোগ রাখার বিষয়টি যুক্ত করা হয়। যুক্ত হয় রেল সংযোগ।

কংক্রিটের বদলে ইস্পাত বা স্টিলের অবকাঠামোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সেতু নির্মাণে পাইলিংয়ের ক্ষেত্রেও বাড়তি গভীরতা ধরা হয়। বেড়ে যায় ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন ব্যয়ও।

২০১৬ সালে যখন ব্যয় বাড়ানো হয়, তখন মূল সেতু নির্মাণ, নদীশাসনসহ সব কাজের ঠিকাদার নিয়োগ সম্পন্ন হয়ে যায়। এর মধ্যে ডলারের বিপরীতে টাকার মান প্রায় ৯ টাকা কমে যায়। ১ দশমিক ৩ কিলোমিটার নদীশাসনের কাজ নতুন করে যুক্ত হয়। মূল সেতু, নদীশাসন ও সংযোগ সড়কে যে পরিমাণ অর্থে ঠিকাদার নিয়োগ দেয়ার প্রাক্কলন করা হয়েছিল, তা থেকে প্রায় ৮ হাজার কোটি টাকা বেড়ে যায়। ২০১৮ সালে সর্বশেষ ১ হাজার ৪০০ কোটি টাকা ব্যয় বাড়ানো হয় জমি অধিগ্রহণের কারণে।

সবমিলিয়ে পদ্মা সেতুর প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়ে ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি ৩৯ লাখ টাকা।

প্রধানমন্ত্রী নিজে জানিয়েছেন, এর মধ্যে মূল সেতু তৈরিতে খরচ হয়েছে, ১২ হাজার ১৩৩ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। এই টাকার মধ্যে আবার ৪০০ কেভি ট্রান্সমিশন লাইন টাওয়ার ও গ্যাসলাইনের জন্য খরচ হয়েছে এক হাজার কোটি টাকা।

এছাড়া নদী শাসনে ৯ হাজার ৪০০ কোটি টাকা, অ্যাপ্রোচ সড়কে এক হাজার ৯০৭ কোটি ৬৮ লাখ টাকা, পুনর্বাসনে এক হাজার ৫১৫ কোটি টাকা, ভূমি অধিগ্রহণে ২ হাজার ৬৯৮ কোটি ৭৩ লাখ টাকা ব্যয় ধরা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন ২১ জুন পর্যন্ত পদ্মা সেতু প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি ৯৪ দশমিক ৫০ শতাংশ। আর মূল সেতুর কাজ শেষ হয়েছে ৯৯ দশমিক ৫০ শতাংশ।

বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণের জন্য এইচ আর সি এম সি`র মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত
শাহজালাল ও শাহ পরান-এর মাজার জিয়ারত করলেন প্রধানমন্ত্রী
   টপ নিউজ
ভাবিকে হত্যার দায়ে দেবরের যাবজ্জীবন
ঘোড়াঘাটে দুইবন্ধু গরু-ছাগলের খামার করে বেশ লাভবান
মহাসড়কে ডাকাতির প্রস্তুতি, ৯ ডাকাত গ্রেফতার
১ হাজার ৬৪৫ কোটি টাকা রাজস্ব ঘাটতি বেনাপোলে
পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
বেড়ায় মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ১
পদ্মা সেতুতে মা-বোনের সঙ্গে উচ্ছ্বসিত জয়
ঈশ্বরদীর সাহাপুরে মাদ্রাসার হাট-বাজার দখলের অভিযোগ
সাকিবের বিশ্বরেকর্ড
বানভাসিদের পাশে ইবি’র তারুণ্য
গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শাশুড়িকে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ
স্বাস্থ্য কর্মকর্তার দুর্নীতিতে বেহাল দশা নগরকান্দা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের
                জাতীয়
পদ্মা সেতুতে মা-বোনের সঙ্গে উচ্ছ্বসিত জয়
মেঘনা গ্রুপের ইকোনমিক জোনে ভয়াবহ আগুন, নিয়ন্ত্রণে ১৪ ইউনিট
নাম তার মন্টু, খায় খড়-ভুসি, দাম ২০ লাখ
পুলিশের সামনেই ছাত্রলীগ নেতাকে হত্যা
        'জাতীয়' - এর আরো খবর
                রাজনীতি
মনোহরদীতে শিল্পমন্ত্রীর আনন্দ র‍্যালী
কেউ আমার খোঁজ নেয়নি: রওশন এরশাদ
আল্লাহর কাছে চাইতে হবে, রাস্তায়ও নামতে হবে : দুদু
মুকুল বোস চলে গেলেন
        'রাজনীতি' - এর আরো খবর
                আন্তর্জাতিক
লুহান্সকের সবচেয়ে বড় শহরের দখল নিয়েছে রাশিয়া
আমেরিকায় ফের কৃষ্ণাঙ্গ হত্যা! যুবককে লক্ষ্য করে ৬০ রাউন্ড গুলি
ডেনমার্কে শপিং মলে গুলি, হতাহত অনেক
করোনায় প্রাণ গেল বাঘের
        'আন্তর্জাতিক' - এর আরো খবর
   ই-পেপার
অনলাইন ভোট
               অর্থ-বাণিজ্য
প্রতিকুলতার মাঝেও রফতানি আয়ে রেকর্ড বাংলাদেশের

স্বাধীন বাংলা প্রতিবেদক
একদিকে করোনা মহামারি অন্যদিকে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। এর মাঝেও ২০২১-২০২২ অর্থবছরে প্রথমবারের মতো রফতানি আয়ে মাইলফলক অর্জন করেছে বাংলাদেশ। গত অর্থবছরে বাংলাদেশ লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে ৫২.০৮ বিলিয়ন ডলার রফতানি করেছে। যা এর আগের অর্থবছরের তুলনায় ৩৪ দশমিক ৩৮ শতাংশ বেশি। রবিবার (৩ জুলাই) রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) রফতানি আয়ের এ তথ্য প্রকাশ করেছে।

ইপিবির তথ্য অনুযায়ী, এর আগের বছর রফতানি আয় ছিল ৩৮ দশমিক ৭৬ শতাংশ। ২০২১-২২ অর্থবছরে রফতানির লক্ষ্যমাত্রাও ছাড়িয়েছে, যা ৪৩ দশমিক ৪ বিলিয়ন নির্ধারণ করা হয়েছিল। গত অর্থবছরের ১২ মাসে বাংলাদেশ থেকে পাঁচ হাজার ২০৮ কোটি ২৬ লাখ ডলারের পণ্য রফতানি হয়েছে, যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১৯ দশমিক ৭৩ শতাংশ এগিয়ে এবং আগের অর্থবছরের চেয়ে ৩৪ দশমিক ৩৮ শতাংশ বেশি।

এর আগে ২০২০-২০২১ অর্থবছরে সর্বসাকুল্যে তিন হাজার ৮৭৫ কোটি ৮৩ লাখ ডলারের পণ্য রফতানির ওপর ভিত্তি করে পরের বছরের জন্য চার হাজার ৩৫০ কোটি ডলারের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল।

রফতানি আয়ে সবচেয়ে বেশি গার্মেন্টস সেক্টর ২০২২ অর্থবছরে ৪২.৬১ বিলিয়ন ডলার আয় করেছে। এ খাতে আয় বেড়েছে ৩৫.৪৭ শতাংশ, যা ২০২১ অর্থবছরেও ৩১.৪৫ বিলিয়ন ডলার ছিল।

রফতানি ৫০ বিলিয়ন ডলারের মাইলফলক অর্জনকে বাংলাদেশের জন্য বড় প্রাপ্তি হিসেবেই দেখছেন নীতিনির্ধারক, ব্যবসায়ী ও অর্থনীতিবিদরা। একইসঙ্গে এ অগ্রযাত্রা টেকসই করতে সরকার ও ব্যক্তি খাতকে আরও নিবিড়ভাবে কাজ করে যেতে হবে বলে মত দিয়েছেন তারা।

খাত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পদ্মা সেতু উদ্বোধনের বছরেই দেশের রফতানি প্রথমবারের মতো ৫০ বিলিয়ন ডলার ছাড়ানোর বিষয়টি একটি প্রতীকী ঘটনা, যা উদীয়মান রফতানি কেন্দ্র হিসেবে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান নিয়ে বিশেষ বার্তা বহন করছে।

ভোজ্যতেলে মেয়াদ বাড়ছে ভ্যাট সুবিধার
ঈদের আগেই চড়া মসলার বাজার
বিশ্ববাজারে কমেছে স্বর্ণের দাম
গ্রামীণফোনের সিম বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা
একনেকে ১০ প্রকল্পের অনুমোদন
বিশ্ববাজারে কমেছে তেলের দাম, এবার সমন্বয়ের দাবি
দেশে তিন মাসে কোটিপতি বেড়েছে ১৬শ
পাকিস্তানে পেট্রলের দাম রেকর্ড বৃদ্ধি
জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর ইঙ্গিত
     'অর্থ-বাণিজ্য' - এর আরো খবর
                শেয়ার বাজার
বিরামপুরে গাছে গাছে কাঁচা-পাকা খেজুর
ডিএসইতে সূচকের উত্থান
সূচকের সঙ্গে বেড়েছে লেনদেন
ঊর্ধ্বমুখী শেয়ারবাজার
পুঁজিবাজারে চাঙ্গাভাব, এক ঘণ্টায় লেনদেন ৯৫০ কোটি ছাড়িয়েছে
বছরের শেষ কার্যদিবসে ইতিবাচক সূচকে পূঁজিবাজার
ইতিচাক গতিতে চলছে পুঁজিবাজারে লেনদেন
সূচকের বড় উত্থানে লেনদেন শুরু
    'শেয়ার বাজার' - এর আরো খবর
                উপসম্পাদকীয়
গৌরব, আত্মমর্যাদা ও আত্মবিশ্বাসের পদ্মা সেতু
আত্মহত্যাকে না বলি জীবনকে উপভোগ করতে শিখি
আত্মহত্যা নয়, বেঁচে থাকায় জীবন
আপোষহীন আবুল মাল মুহিত
প্রস্তাবিত গণমাধ্যমকর্মী আইন ‘কাটা ঘায়ে নুনের ছিটা’
রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনে বঙ্গবন্ধু
জগন্নাথের গর্ব ভাষা শহীদ রফিক
    'উপসম্পাদকীয়' - এর আরো খবর

                পড়াশোনা
গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার তারিখ-ফি নির্ধারণ ৩০মে
রাজধানীর ৩৪২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে নতুনভাবে সাজানো হবে
শুধুমাত্র পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া শিক্ষার লক্ষ্য নয় : শিক্ষামন্ত্রী
স্বপ্ন যখন বিদেশে পড়াশোনা
এবার জেএসসি পরীক্ষা কি হবে
ড. মীজানের ‘পঞ্চাশের রিকনসিলেশন’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন
   'পড়াশোনা' - এর আরো খবর
                তথ্য -প্রযুক্তি
গ্রামীণফোন ব্যবহারকারীদের জন্য দুঃসংবাদ
অবাধ তথ্য প্রবাহের সুবর্ণ সময় অতিক্রম করছে বাংলাদেশ : স্পিকার
ইন্টারনেটে তথ্যপ্রবাহের দুনিয়া খুলে গেল
বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ আয় তিন বছরে ৩০০ কোটি টাকা
অ্যাপল-গুগল ১৫ লাখ অ্যাপ সরিয়েছে
চাঁদের মাটিতে গাছের চারা জন্মাতে পেরেছেন বিজ্ঞানীরা
আইফোন ১৪এর ডিজাইন ফাঁস
   'তথ্য -প্রযুক্তি' - এর আরো খবর
                ফিচার
বিখ্যাত ‘মঙ্গলবাড়িয়া লিচু’র স্বাদ ছড়াচ্ছে দেশে দেশে
বিশ্বে এইসব দেশে সবচেয়ে দীর্ঘ সময়ের রোজা হয়
আলু পরোটা বিক্রি করে সংসার চলে রাজ্জাকের
ঋতুরাজ বসন্তের আগমনী বার্তা দিচ্ছে শিমুল ফুল
তিল চাষে অধিক মুনাফার সম্ভাবনা
   'ফিচার' - এর আরো খবর

খেলাধূলা
ইতালির ফুটবলে প্রথম নারী রেফারি মারিয়া
আটলান্টিক পাড়ি দিতে গিয়ে ভয়ঙ্কর পরিস্থিতিতে টাইগাররা
সাকিবের বিশ্বরেকর্ড
মালয়েশিয়া ওপেন, শেষ আটে সিন্ধু
উইন্ডিজ সফরে বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি দল ঘোষণা
   'খেলাধূলা' - এর আরো খবর
বিনোদন
অভিনেত্রী স্বরা ভাস্করকে খুনের হুমকি!
৬ বছরেই অঢেল সম্পত্তির মালিক রাশমিকা
বিয়ে করেননি সুস্মিতা, কারণ
ঘরে চলছে হনুমান চালিশা, শিব্যাকে দিচ্ছে কুপ্রস্তাব
জ্যাকলিনকে ফের জিজ্ঞাসাবাদ
   'বিনোদন' - এর আরো খবর

                স্বাস্থ্য
যে কারণে যৌন শক্তি বাড়ানোর ঔষধের দিকে ঝুঁকছে আরব তরুণরা
ঘরে ঘরে জ্বর-সর্দি
পেটে ব্যান্ডেজ রেখেই সেলাই করেন ডাক্তার, ৭ মাস পর অপসারণ
মূত্রত্যাগের পরেও প্রস্রাবের প্রবল বেগ? এই লক্ষণে সাবধান
ফের করোনার সামাজিক সংক্রমণ শুরুর ইঙ্গিত
অবৈধ ক্লিনিক-ডায়াগনস্টিকের অধিকাংশেরই মালিক ডাক্তার ও রাজনীতিক
অবৈধ ক্লিনিক-ডায়াগনস্টিক সেন্টার ৭২ ঘণ্টার মধ্যে বন্ধের নির্দেশ
সকল স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে: বিএসএমএমইউ উপাচার্য
স্বাস্থ্য সুরক্ষায় বেলি ফুলের উপকারিতা
   'স্বাস্থ্য' - এর আরো খবর
                ফটোগ্যালারী
                শিক্ষা
এসএসসি পরীক্ষা পিছিয়ে আগস্টে
শিক্ষক হত্যার ৫ দিন পর খুললো সাভারের সেই স্কুল
এক কলেজের ১৬ শিক্ষার্থী বুয়েটে ও ৩৯ জন মেডিকেলে
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০২ এ পদার্পণ
প্রোগ্রামিং দক্ষতায় সারাদেশে তৃতীয় স্থান অর্জন করেছে শাবিপ্রবি
এইচএসসি পরীক্ষাও পেছাচ্ছে
চবির লেখক ফোরামের কর্মশালা
   'শিক্ষা' - এর আরো খবর

                চিত্র-বিচিত্র
২ সন্তানের জননী চাচীকে বিয়ে করলেন ভাতিজা
গরুর গোস্তে আল্লাহর নাম!
বরিশালে জন্ম নেয়া দুই মাথা ও তিন পা যুক্ত শিশুর মৃত্যু
মাটি খুঁড়তেই বেরিয়ে এলো পাত্রভর্তি পুরনো ধাতব মুদ্রা
রাজশাহীতে ৯৫০ টাকায় বিক্রি হলো একটি আম
বিড়ালছানাকে বাঁচাতে আগুনে ঝাপ দিল কুকুর
   'চিত্র-বিচিত্র' - এর আরো খবর
                নগর - মহানগর
রংপুরে বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ
খুলনায় চিকিৎসক সমাবেশে মেয়াদোত্তীর্ণ চিপস বিতরণ!
মহানবীকে (সা.) কটুক্তি: বিক্ষোভে উত্তাল ফেনী
ময়মনসিংহে যুবলীগের বিক্ষোভ মিছিল
গোপালগঞ্জ পৌর নির্বাচন: শেখ রকিবের ব্যাপক গণসংযোগ
   'নগর - মহানগর' - এর আরো খবর
                রাজধানী
গুলিস্তানে ট্রাকের ধাক্কায় পথচারী নিহত
পোস্তগোলা, ধলেশ্বরী ও আড়িয়াল খাঁ ব্রিজের টোল বন্ধ হচ্ছে
প্রধানমন্ত্রীর কাছে ক্ষমা চেয়েছে বায়েজিদের পরিবার
গাড়ি আমদানিতে শীর্ষে এখন মোংলা বন্দর
দুর্নীতির দায়ে দক্ষিণ সিটির উপ-কর কর্মকর্তাসহ ৩৪ জন চাকরিচ্যুত
   'রাজধানী' - এর আরো খবর
                গ্রাম বাংলা
ঘোড়াঘাটে দুইবন্ধু গরু-ছাগলের খামার করে বেশ লাভবান
মহাসড়কে ডাকাতির প্রস্তুতি, ৯ ডাকাত গ্রেফতার
১ হাজার ৬৪৫ কোটি টাকা রাজস্ব ঘাটতি বেনাপোলে
পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
বেড়ায় মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ১
ঈশ্বরদীর সাহাপুরে মাদ্রাসার হাট-বাজার দখলের অভিযোগ
   'গ্রাম বাংলা' - এর আরো খবর

                সিলেট
সিলেটে বাড়ছে পানিবাহিত রোগ
সুনামগঞ্জে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের জন্য ৫ কোটি টাকা অনুদান
ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের মধ্যে নগদ অর্থ বিতরণ করেছেন ডাঃ শফিকুল
অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো ইবাদত: অধ্যাপক জাকির
সুনামগঞ্জের বানভাসিরা হারিয়েছে পৌনে ৪ লাখ পশু-পাখি
সিলেটে ট্রলারের ধাক্কায় পুলিশের নৌকাডুবি, হারিয়ে গেছে অস্ত্র
   'সিলেট' - এর আরো খবর
                চট্রগ্রাম
‘বঙ্গবন্ধু টানেল’ আরও একটি স্বপ্ন ছোঁয়ার প্রতীক্ষায় দেশ
কাপ্তাই হ্রদে তীব্র স্রোত, লঞ্চ চলাচল বন্ধ
রাঙামাটিতে পাহাড়ধসের ঝুঁকি, স্থানীয়দের সরতে মাইকিং
চট্টগ্রামে একাধিক পাহাড় ধসে নিহত ৪
আলীকদমে ম্রো জনগোষ্ঠীর বসতবাড়ি পুড়ে ছাই
আনোয়ারায় ব্যাপক নির্বাচনী সহিংসতা: ইউপি চেয়ারম্যানসহ আহত ২০
   'চট্রগ্রাম' - এর আরো খবর
                কৃষি
সারের বদলে মানুষের প্রস্রাব দিয়ে চাষে ৩০ শতাংশ ফলন বাড়ে: গবেষণা
বিরোধীরা আন্দোলনে নামলে পাল্টা আন্দোলন হবে: কৃষিমন্ত্রী
তপ্ত দিনে বিরামপুরে উঠেছে রসালো তালশাঁস
যশোরে লিচুর বাম্পার ফলন হলেও দাম পাচ্ছে না চাষিরা
বোরো ধানের ফলনে হাসলেও দামে হতাশ আনোয়ারার কৃষকেরা
মিঠাপুকুরে বোরো ধান পানিতে, শ্রমিক সংকট চরমে
   'কৃষি' - এর আরো খবর
                পরিবেশ
১৫০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ দাবদাহের মুখে জাপান
‘আবার এসেছে আষাঢ় আকাশ ভেঙে
আজ জীববৈচিত্র্য দিবস
সাভারে অবৈধ চুল্লিতে কয়লার উৎপাদন, হুমকিতে পরিবেশ ও জীববৈচিত্র
আবাসিক এলাকায় কৃষি জমিতে ইটভাটা নির্মাণের পায়তারা!
বিপন্ন ময়ূরটিকে আঘাত করে স্থানীয়রা
   'পরিবেশ' - এর আরো খবর

                আইন - অপরাধ
ভাবিকে হত্যার দায়ে দেবরের যাবজ্জীবন
স্বাস্থ্য কর্মকর্তার দুর্নীতিতে বেহাল দশা নগরকান্দা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের
নড়াইল সদর থানার ওসি ক্লোজড
সানফ্লাওয়ার ইন্সুরেন্সের প্রতারণা, বীমার টাকার দাবিতে ঘেরাও
বান্ধবীর কাছে হিরো সাজতে শিক্ষককে মারধর করে জিতু
হবিগঞ্জের একজনের মৃত্যুদণ্ড, ৩ জনের আমৃত্যু কারাদণ্ড
মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামী গুলশান থেকে গ্রেফতার
রূপসী বাংলার ভ্যাট ফাঁকি ১৮.৮৩ কোটি
৭দিন ঘরে পুঁতে রাখা যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার
   'আইন - অপরাধ' - এর আরো খবর
                মানবাধিকার
কার্টুনিস্ট কিশোরের কানে অস্ত্রোপচার
বিশ্বে স্ত্রী নির্যাতনে বাংলাদেশের অবস্থান চতুর্থ
ভাসানচরের পথে চট্টগ্রাম ছাড়লেন আরো ১৭৫৯ রোহিঙ্গা
২২৬০ রোহিঙ্গা শরনার্থী নিয়ে ভাসানচরের পথে ৬ জাহাজ
লেখক মুশতাকের মৃত্যু : গাজীপুর জেলা প্রশাসনের তদন্ত কমিটি গঠন
লেখক মুশতাকের মৃত্যুতে যুক্তরাষ্ট্রসহ ১৩ দেশের রাষ্ট্রদূতের শোক ও উদ্বেগ
সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যার বিচার দাবিতে মানববন্ধন
ভাসানচরে পৌঁছাল আরও ১০১১ জন রোহিঙ্গা শরণার্থী
   'মানবাধিকার' - এর আরো খবর
                সম্পাদকীয়
প্রতারকদের প্রশ্রয় নয়
আত্মহত্যা ও বিবিধ আলোচনা
দুর্ঘটনা প্রতিরোধই কাম্য
ক্রীড়াঙ্গনে কলঙ্কের ছাপ
দায়ীদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নিন
একটি বিলম্বিত বোধদয়ের অবিশ্বাস্য কালক্ষেপণ
বন্যা পরিস্থিতির অবনতি
বাণিজ্য বাড়ছে ভারতে
   'সম্পাদকীয়' - এর আরো খবর
                শিল্প সাহিত্য
জাতীয় সাহিত্য সম্মেলন অনুষ্ঠিত
অন্যপথে পথ
বিশ্বসাহিত্য পরিক্রমা : উর্দু সাহিত্য
সার্বিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আগমনে শিল্পকলার সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান
বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রে ঝিকুটের আলোচনা সভা
ফিরে আসুক আবারও মুজিব
বইমেলায় আসছে সাজ্জাদ চিশতির ‘আমাদেরও আছে একজন শেখ হাসিনা’
ব্র্যাক ব্যাংক-সমকাল সাহিত্য পুরস্কার পেলেন ৬ লেখক
“হোমার-সাগরে হিমালয়” কাব্যগ্রন্থের প্রকাশনা উৎসব অনুষ্ঠিত
সামাজিক দূরত্ব নাকি শারীরিক দূরত্ব?
   'শিল্প সাহিত্য' - এর আরো খবর

                সম্পাদকীয়
প্রতারকদের প্রশ্রয় নয়
আত্মহত্যা ও বিবিধ আলোচনা
দুর্ঘটনা প্রতিরোধই কাম্য
ক্রীড়াঙ্গনে কলঙ্কের ছাপ
দায়ীদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নিন
একটি বিলম্বিত বোধদয়ের অবিশ্বাস্য কালক্ষেপণ
বন্যা পরিস্থিতির অবনতি
   'সম্পাদকীয়' - এর আরো খবর
                এক্সক্লুসিভ
মধু সর্ব রোগের শেফা
পিছিয়ে পড়া নারী সমাজকে নিয়ে ‌`ভয়েস অব ওমেন`
যুক্তরাজ্যের অবৈধ নাগরিকদের ঠাঁই হবে রুয়ান্ডায়
করোনাকালে ভোলায় ২২ হাজার শিক্ষার্থী বাল্যবিয়ের শিকার
নিরাপত্তা ঝুঁকিতে অস্ট্রেলিয়া
যুদ্ধের প্রভাব: লন্ডনে ডিজেলের লিটার ২০০ টাকা
তনু হত্যার ৬ বছর: চোরাবালিতে আটকে আছে তদন্ত, শনাক্ত হয়নি আসামি
   'এক্সক্লুসিভ' - এর আরো খবর
                ইসলাম
৫৩৩৬৭ হজযাত্রী সৌদি আরব পৌঁছেছেন
বাংলাসহ ১৪ ভাষায় সম্প্রচার হবে হজের খুতবা
পবিত্র ঈদুল আজহা ১০ জুলাই
সৌদি-আমিরাতে ঈদুল আজহা ৯ জুলাই
ওমরাহ করতে লাগবে না এজেন্সি
প্রস্তুত শোলাকিয়া ঈদগাহ; ৪ স্থরের নিরাপত্তা
সদকায়ে ফিতর: কিছু কথা
আজ পবিত্র লাইলাতুল কদর
   'ইসলাম' - এর আরো খবর
                জীবনশৈলী
অন্য স্বাদের মুরগির মালাইকারি, রইলো রেসিপি
বর্ষাকালে চুলের যত্ন
স্বামীর কাছে যে জিনিসগুলো আশা করেন স্ত্রী
ফিশ পাকোড়া তৈরির রেসিপি
সঙ্গীর পাশে ঘুমালে সুস্থ থাকে শরীর, বলছে গবেষণা
পাইলসের সমস্যা দূর করবে যে ৫ খাবার
স্ট্রোকের শঙ্কা কমাতে প্রকৃতির ছোঁয়া, জানাচ্ছে গবেষণা
স্নানের আগে বা পরে কি করা উচিৎ নয় জেনে নিন
নিয়মিত আপেল খাওয়ার ১০টি স্বাস্থ্য উপকারিতা
   'জীবনশৈলী' - এর আরো খবর

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আখলাকুল আম্বিয়া
নির্বাহী সম্পাদক: মাে: মাহবুবুল আম্বিয়া
যুগ্ম সম্পাদক: প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: স্বাধীনতা ভবন (৩য় তলা), ৮৮ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০। Editorial & Commercial Office: Swadhinota Bhaban (2nd Floor), 88 Motijheel, Dhaka-1000.
সম্পাদক কর্তৃক রঙতুলি প্রিন্টার্স ১৯৩/ডি, মমতাজ ম্যানশন, ফকিরাপুল কালভার্ট রোড, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত ।
ফোন : ০২-৯৫৫২২৯১ মোবাইল: ০১৬৭০৬৬১৩৭৭

Phone: 02-9552291 Mobile: +8801670 661377
ই-মেইল : dailyswadhinbangla@gmail.com , editor@dailyswadhinbangla.com, news@dailyswadhinbangla.com

 

    2015 @ All Right Reserved By dailyswadhinbangla.com

Developed By: Dynamic Solution IT